বাতিল হলো আইপিএল! এশিয়া কাপ নিয়ে দুই রকম সুর

বিশ্বব্যাপী করোনা আতঙ্কে একের পর এক বিগ বাজেট ইভেন্ট বাতিল করা হচ্ছে। প্রথমে বাতিলের তালিকায় নাম উঠলো শুটিং বিশ্বকাপের। এরপর সেই তালিকায় যোগ হলো বিশ্বের সবথেকে প্রাচীন এবং বড় অ্যাথলেট ইভেন্ট ২০২০ টোকিও অলিম্পিক। এবার তালিকায় নতুন নাম যোগ হতে যাচ্ছে।

কোভিড-১৯ আতঙ্কে শঙ্কা দিয়েছে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) হওয়া নিয়ে। জনপ্রিয় এই ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ করোনাভাইরাসের কারণে পিছিয়ে যেতে পারে। যদিও ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি এই টুর্নামেন্ট বাতিলের পক্ষে যাচ্ছেন না।

তবে জল্পনা বেড়েছে সম্প্রতি মহারাষ্ট্রের মন্ত্রী রাজেশ তোপের মন্তব্যেপর। তিনি বলেন – স্টেডিয়াম থেকেই ভাইরাস ছড়িয়ে যেতে পারে। সংক্রমণের আশঙ্কায় বাতিল করা হোক আইপিএল। আইপিএল আপাতত অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার কথাও শোনা যাচ্ছে ভারতের ক্রিকেট প্রশাসকদের মুখে। যদিও এমন কোনো আশঙ্কার কথায় আপাতত বিশ্বাস না করতে আর্জি জানিয়েছে বিসিসিআই।

বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী বোর্ডের ভাষ্য – আইপিএল বাতিলের আশঙ্কার কোনো কারণ নেই। আইপিএল আসতে এখনও অনেক সময় আছে। স্টেডিয়ামগুলোতে অতিরিক্ত মেডিক্যাল সতর্কতা মেনে চলা হবে। সেগুলোতে প্রবেশের আগেই পরীক্ষা করা হবে দর্শকদের। তবে একইসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত এখনও নেয়া হয়নি।

আগামী ২৯ মার্চ মুম্বাইয়ে শুরু হবে আইপিএল-২০২০। ভারতে করোনাভাইরাস আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমশ বেড়ে চলেছে। সোমবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, দেশটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৪৩। এমতাবস্থায় আইপিএল আয়োজন নিয়ে শঙ্কা থেকেই যাচ্ছে।

এশিয়া কাপের ভ্যেনু নিয়ে যত জল্পনা-কল্পনা:

এদিকে এশিয়া কাপের ভ্যেনু নিয়ে আবারও শুরু হয়েছে জল্পনা-কল্পনা। ২০২০ সালের এশিয়া কাপ হওয়ার কথা ছিল পাকিস্তানে। কিন্তু পাকিস্তান গিয়ে খেলতে আপত্তি জানিয়েছে ভারত। প্রভাবশালী বোর্ডটি এবারের আসর দুবাইয়ে সরিয়ে নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিল।

তবে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) চেয়ারম্যান এহসান মানি মধ্যপ্রাচ্যের দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতের পাশাপাশি বাংলাদেশকে ভেন্যু বানানোর জন্য বিবেচনায় রেখেছেন। সে হিসেবে দুবাইতে যদি আসর না হয়, আসরটি আয়োজনের ভার পাবে বাংলাদেশ।

পূর্বনির্ধারিত সূচি অনুযায়ী, আগামী সেপ্টেম্বরে হবে এশিয়ান ক্রিকেটের ময়দানি যুদ্ধ। এর পরেই রয়েছে আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। সেটি মাথায় রেখে এবারের এশিয়া কাপ হবে টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে। সর্বোপরি টুর্নামেন্টটি কোথায় হবে? গেল সপ্তাহেই এ প্রশ্নের জবাব মিলত।

তবে দুবাইয়ে করোনাভাইরাস রোগী শনাক্ত হওয়ায় নির্ধারিত বৈঠক স্থগিত করেন বিসিসিআই ও পিসিবিকর্তারা। সভাটি সেখানেই হওয়ার কথা ছিল। স্থগিত মিটিংটি আগামী মাসে হওয়ার কথা রয়েছে। সেখানেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। এর আগে গত শনিবার নিরপেক্ষ ভ্যেনুর কথা নিশ্চিত করেন পিসিবি প্রধান।

তিনি বলেন – এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের (এসিসি) সহযোগী সদস্য দেশগুলোর আগ্রহ তথা চাহিদা কথা আমাদের মাথায় রাখতে হবে। পাকিস্তানের মাটিতে খেলার বিষয়ে আগ্রহী নয় ভারত। তদুপরি আমরা এ বিষয়ে তাদের জোর করতে পারি না। আত বিকল্প হিসেবে খোলা থাকছে একমাত্র নিরপেক্ষ ভেন্যুতে টুর্নামেন্ট আয়োজন করা। এসিসির সদস্য দেশগুলোর সঙ্গে কথা বলেই এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।

সম্প্রতি বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ জোর দিয়ে বলেন – এশিয়া কাপ হবে দুবাইয়ে। কিন্তু ২০১৮ আসরও হয়েছে মরুর বুকে। এ ক্ষেত্রে গুঞ্জন আছে বাংলাদেশে হওয়ার। এহসান মানিও সেই ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছেন। তিনি বলেন – এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি কোথায় হবে, আরব আমিরাত নাকি বাংলাদেশে। তবে এসিসির বৈঠকেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে।

ধারণা করা হচ্ছে, সে ক্ষেত্রে এশিয়া কাপ আয়োজনে বাংলাদেশকে ‘ভোট’ দিতে পারে পাকিস্তান। কারণ দেশটিতে ক্রিকেট ফেরাতে মুখ্য ভূমিকা পালন করছেন টাইগাররা। তিন দফায় সেখানে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলছেন তারা। স্বভাবতই পিসিবি-বিসিবির মধ্যে সৌহার্দপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে উঠেছে।


আরো পড়ুন:


দিনের ব্রেকিং নিউজ সবার আগে পেতে আমাদের সাথে যুক্ত থাকুন:facebook-button-join-group

সরকারি এবং বেসরকারি চাকুরির নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পেতে

facebook-button-join-group

Agami Soft. - Inventory Management System

পাঠকের মতামত