শুধু বাংলাদেশই নয়, এ বছর বেকারত্ব বাড়ছে বিশ্বব্যাপী!

আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) বিশ্বব্যাপী বেকারত্ব নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি বছর বিশ্বব্যাপী বেকারত্ব বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ওয়ার্ল্ড এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড আউটলুক : ট্রেন্ডস ২০২০ শীর্ষক প্রতিবেদনটিতে আরো বলে হয়েছে, এই বছর সারাবিশ্বে প্রায় ২৫ লাখ বেকারত্ব বাড়তে পারে।

প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, বিশ্বব্যাপী শ্রমশক্তি বেড়েছে অনেক, কিন্তু তার সাথে সামঞ্জস্য রেখে নতুন কর্মসংস্থান বাড়ছে না। এর ফলে যথাযথ মজুরি না পাওয়া সত্ত্বেও অল্প মজুরিতে কাজ করছে প্রায় ৫০ কোটি শ্রমিক। গত ৯ বছর ধরে বেকারত্বের হার স্থিতিশীল থাকলেও চলতি বছর বেকারত্বের হার বাড়বে বলে এই প্রতিবেদনে অনেকটা নিশ্চিত হওয়া গেছে।

আরও পড়ুন>>> কানাডায় ৪০ লাখ মানুষ পর্যাপ্ত খাবার পাচ্ছে না!

পর্যাপ্ত কাজের ক্ষেত্র যথাযথভাবে তৈরি না হওয়া এবং যথাযথ অন্তর্ভূক্তির অভাবের কারণে বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানের মত এশিয়ার কিছু দেশে কাজের পরিবেশ তৈরি করা খুব কঠিন হয়ে পড়েছে। যার ফলে এসব দেশে দারিদ্রতা দিন দিন বেড়ে চলছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। মূলত শ্রমিক সরবরাহের তুলনায় চাহিদার তারতম্য থাকার ফলে এসব অঞ্চলে বেকারত্ব বাড়ছে বলে আইএলও দাবি করছে।

বর্তমানে বিশ্বব্যাপী প্রায় ১৯ কোটি লোক কর্মহীন। এছাড়া সাড়ে ১৬ কোটি মানুষ কাজের যথাযথ পারিশ্রমিক পাচ্ছে না, আর ১২ কোটি মানুষ কাজে প্রবেশের চেষ্টা করছে। সবমিলিয়ে কাজের যথাযথ সুযোগ না থাকায় বিশ্বব্যাপী ৪৭ কোটি মানুষের ওপর এর প্রভাব পড়েছে।

“অপর্যাপ্ত বেতনের কাজ প্রায় অর্ধ বিলিয়ন মানুষকে প্রভাবিত করে”

প্রতিবেদনে বলা হয়, শ্রমবাজারে প্রবেশের ক্ষেত্রে নারী ও অপেক্ষাকৃত তরুণরা অতিরিক্ত বাধার মুখে পড়েন। এছাড়া বিশ্বব্যাপী শ্রম আয়ের ক্ষেত্রে আগের প্রাক্কলনের চাইতে বৈষম্য বাড়ছে। আইএলওর মহাপরিচালক গাই রাইডার বলেন – বিশ্বব্যাপী কোটি কোটি মানুষের জন্য কাজের মাধ্যমে জীবনযাত্রার মান বাড়ানো কঠিন হয়ে যাচ্ছে।

ঢাকায় আইএলওর কান্ট্রি ডিরেক্টর টুমো পুটিআইনেন বলেন – মানুষের দক্ষতা বাড়ানোর জন্য বিনিয়োগ বাড়ানো দরকার। বিশেষত শিক্ষা, লিঙ্গ সমতা ও সামাজিক নিরাপত্তার বিষয়ে বিনিয়োগ বাড়ানো প্রয়োজন। সুইজারল্যান্ডের জেনেভা থেকে বিশ্বব্যাপী একযোগে আজ প্রতিবেদনটি প্রকাশ হচ্ছে।

আরও পড়ুন>>> বসবাসের জন্য বিপজ্জনক ২০টি দেশের তালিকা প্রকাশ

Agami Soft. - Inventory Management System

পাঠকের মতামত