তুহিন হত্যায় ১০ জনকে আসামি করে মামলা

সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে আলোচিত হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মামলা করা হয়েছে। তুহিন হাসান (৫)  নামের শিশুকে নির্মমভাবে হত্যার ঘটনায় শিশুটির মা বাদী হয়ে মঙ্গলবার ভোরে এই মামলা করেন। ওসি আবু তাহের মোল্লা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মামলার আসামি করা হয়েছে ১০ জনকে। তবে ১০ আসামির নাম জানা যায়নি। উপজেলার রাজানগর ইউনিয়নের গচিয়া কেজাউড়া গ্রামের পাঁচ বছরের শিশু তুহিনকে রবিবার (১৩ অক্টোবর) রাতে ঘর থেকে তুলে নিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। সোমবার সকাল ১০টার দিকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। সে একই এলাকার বছির মিয়ার ছেলে।

ঘাতকরা তার লাশ রাস্তার পাশের একটি গাছের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখে। এ সময় তুহিনের শরীরে ধারালো অস্ত্রের আঘাত ছিল। তার পেটে দুটি ছুরি ঢোকানো ছিল, দুটি কান কাটা, এমনকি যৌনাঙ্গটিও কেটে ফেলা হয়।

তুহিনের স্বজনরা জানান, রবিবার রাতে প্রতিদিনের মতো খাবার খেয়ে পরিবারের সবাই ঘুমিয়ে পড়েন। রাত ১২টার দিকে শিশু তুহিন প্রকৃতির ডাকে উঠলে তার মা বাহিরে নিয়ে যান। এর পর তাকে এনে আবার ঘুম পাড়িয়ে দেন।

রাত ৩টার দিকে মা-বাবা জেগে দেখেন তুহিন ঘরে নেই। পরে পরিবারের লোকজন খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। একপর্যায়ে বাড়ির পাশে সুফিয়ান মোল্লার উঠানে মসজিদের পাশে কদমগাছে ঝুলন্ত অবস্থায় তুহিনের গলাকাটা লাশ দেখতে পান।

খবর পেয়ে সোমবার সকালে জেলা পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান পিপিএম, সিআইডি ও ডিবি পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পরে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের বাবা আব্দুল বাছির, ও তার তিন চাচা মাওলানা আব্দুল মোছাব্বির, জমসেদ মিয়া, নাছির, জাকিরুল, চাচি খয়রুন বেগম এবং চাচাতো বোন তানিয়াকে থানায় নিয়ে আসা হয়।

এদের মধ্যে কয়েকজন এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। সুরতহালে যাদের নাম রয়েছে তাদের বিষয়টিও নজরে আছে।

Agami Soft. - Inventory Management System

পাঠকের মতামত