বাবার আসনে বসলো ছেলে

অবশেষে রংপুর-২ আসনের এমপি নির্বাচিত হলেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ছেলে সাদ এরশাদ। বাবার উত্তরাধিকারী হিসেবে রংপুর-৩ আসনে বিজয়ী হলেন সাদ।রংপুর-৩ আসনের উপ নির্বাচনে বেসরকারিভাবে সাদকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে। এরফলে  লাঙ্গলের দুর্গ হয়েই থাকলো রংপুর-৩ আসন।

নির্বাচনে ৫৮ হাজার ৮৭৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে এমপি নির্বাচিত হয়েছেন জাতীয় পার্টির প্রার্থী এরশাদপুত্র রাহগির আল মাহি সাদ এরশাদ। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী রিটা রহমান পেয়েছেন ১৬ হাজার ৯৪৭ ভোট।

স্বতন্ত্র প্রার্থী সাদের চাচাত ভাই মোটরগাড়ি প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১৪ হাজার ৯৮৪ ভোট। মাছ প্রতীকে গণফ্রন্ট প্রার্থী কাজী মো. শহিদুল্লাহ পেয়েছেন ১ হাজার ৬৬২, খেলাফত মজলিশের তৌহিদুর রহমান মন্ডল দেয়াল ঘড়ি মার্কায় পেয়েছেন ৯২৪ ভোট এবং এনপিপি প্রার্থী শফিউল আলম আম প্রতীকে পেয়েছেন ৬১১ ভোট।

৪ লাখ ৪১ হাজার ২২৪ ভোটারের মধ্যে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন ৯৪ হাজার ৬ জন। যা মাত্র ২২ দশমিক ৮৬ শতাংশ। একাদশ সংসদ নির্বাচনের চেয়ে ৩০ শতাংশ কম। রংপুর সদর উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়ন ও সিটি করপোরেশনের ২৫টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত রংপুর-৩ আসনের ১৭৫টি কেন্দ্রে শনিবার ইভিএমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

জাতীয় পার্টির প্রার্থী সাদ এরশাদকে বেসরকাভিাবে নির্বাচিত ঘোষণা করে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় রিটার্নিং কর্মকর্তা ও রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা জিএম সাহাতাব উদ্দিন জানান, উপনির্বাচনে ভোট পড়েছে ২২ দশমিক ৮৬ শতাংশ। তবে নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

ভোটে বিজয়ী হয়ে সাদ বলেন, ‘রংপুরবাসী আমার প্রতি সম্মান দেখিয়েছেন। রংপুরে জাতীয় পার্টির দুর্গ রক্ষায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। আমার দেয়া কথা অনুযায়ী বাবার (এরশাদ) অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করে পিছিয়ে পড়া রংপুরকে এগিয়ে নিয়ে যাব।’

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও এ আসনটিতে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট নিয়েছিল ইসি। ১ লাখ ৪২ হাজার ৯২৬ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছিলেন জাতীয় পার্টির সাবেক চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি প্রার্থী রিটা রহমান পেয়েছিলেন ৫৩ হাজার ৮৯ ভোট। ভোট পড়েছিল ৫২ দশমিক ৩১ শতাংশ।

Agami Soft. - Inventory Management System

পাঠকের মতামত