এক আর্জেন্টাইন তরুণেই উড়ে গেল মেক্সিকো!

বুধবার সকালে যেন হঠাৎ করেই জ্বলে উঠলেন লাউতারো মার্তিনেস। এদিন তার সাথে ছিল না আর্জেন্টাইন তারকা ফরওয়ার্ডদের উপস্থিতিতে ম্যাচের সম্পুর্ণ আলো কেড়ে নিল এই আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার। তার কামাদাগানো গোলে মেক্সিকো হারে ৪ গোলে।

ম্যাচে আর্জেন্টিনার হয়ে হ্যাটট্রিক মার্তিনেস। বাকী এক গোল করেন লিয়ান্দ্র পারদেস। চার গোলের বিপরীতে মেক্সিকো একবার আকাশী-নীলদের জালে একবারও বল জড়াতে পারেনি।

দলে লিওনেল, সের্হিও আগুয়েরো অনুপস্থিত! দলের বেশিরভাগই তরুণ। একই দল নিয়ে এর আগের ম্যাচে চিলির বিপক্ষে বিধ্বংসী হয়ে উঠতে পারেনি দলটি। তবে এবার আর বসে থাকেনি দলটি। মেক্সিকোকে পাত্তাই দিল না তারা।

খেলার ১৭ মিনিটে মার্তিনেস উৎসবের শুরু করেন। মাঝমাঠ থেকে পারেদেসের পাঠানো বল প্রতিপক্ষ খেলায়ড়কে এড়িয়ে কোনাকুনি শটে জালে পাঠান মার্তিনেস। পাঁচ মিনিট পর আবার জালের দেখা পান মার্তিনেস।

এসেকিয়েল পালাসিওসের ডিফেন্স চেরা পাসে বাঁ পায়ের আরেকটি কোনাকুটি শটে গোলরক্ষক গিলের্মো ওচোয়াকে পরাস্ত করেন ইন্টার মিলানের এই স্ট্রাইকার।

খানিক পর মার্তিনেসের কাট ব্যাক কার্লোস সালসেদোর হাতে লাগলে পেনাল্টি পায় আর্জেন্টিনা। ৩৩ তম মিনিটে পারেদেসের স্পট কিকে হাত লাগালেও জালে যাওয়া ঠেকাতে পারেননি ওচোয়া। ৪১তম মিনিটে নিজের তৃতীয় ও দলের চতুর্থ গোলটি করেন মার্তিনেস। এই গোলে ভাগ্যের একটু ছোঁয়াও আছে। বল পাওয়ার পর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেছিলেন।

মেক্সিকোর এক খেলেয়াড়ের পায়ে লাগার পর আবার বল পেয়ে বুলেট গতির শটে জাল খুঁজে নেন মার্তিনেস। পেয়ে যান দেশের হয়ে প্রথম হ্যাটট্রিক। চলতি বছরে আর্জেন্টিনার হয়ে ৯ ম্যাচে আট গোল করলেন মার্তিনেস। দেশের হয়ে সব মিলিয়ে ১৩ ম্যাচে ৯ গোল করলেন ২২ বছর বয়সী এই স্ট্রাইকার।

দ্বিতীয়ার্ধে ব্যবধান বাড়াতে পারেনি আর্জেন্টিনা। মেক্সিকো পারেনি প্রতিপক্ষের জমাট রক্ষণ ভাঙতে।

Agami Soft. - Inventory Management System

পাঠকের মতামত