দ্বিতীয় ইনিংসে সাকিবের রাজকীয় ফেরা!

স্পিন সহায়ক পিচ তৈরি করে এখন খেসারত দিচ্ছে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। জহির, রাশিদ, নবিদের সামনে দাঁড়াতেই মুশকিল হয়ে গেছে সাদমান, সাকিবদের। চট্রগ্রামের ম্যাচের পাল্লা এখন ঝুলছে আফগানিস্তানের দিকেই। তৃতীয়দিনে আজ ব্যাটিং করতে নেমেই প্রথম ওভারে নবম ধাক্কা খেল বাংলাদেশ।

আগে ব্যাটিং করে আফগানদের করা ৩৪২ রান টপকানো কত যে কঠিন সেটা প্রথমেই বুঝিয়ে দিয়েছিলেন বাংলাদেশ দলের ওপেনার সাদমান ইসলাম। প্রথম ওভারেই তিনি ফিরে গেলেন রানের খাতা না খুলেই। এরপর সোম্য সরকারকে (১৪) দলীয় ৩৮ রানের মাথায় প্যাভিলিয়নের পথ দেখালেন মোহাম্মদ নবি।

এরপর লিটন দাস এবং মমিনুল মিলে ধৈর্য্যের পরীক্ষা দেওয়ার চেষ্টা করলেও সেটি ব্যর্থ হয় দলীয় ৫৪ রানে লিটন দাসের ফিরে যাওয়াতে (৩৩)। রশিদ খানের বলে ক্লিন বোল্ড হয়ে ফিরেন তিনি। রশিদ খানের দ্বিতীয় শিকার হয়ে টাইগার দলপতিও ফিরে যান ১১ রান করে। সাকিবের ফেরার পথে দলের স্কোর ৮৮ রানে ৪ উইকেট।

একপ্রান্ত আগলে রেখে সুন্দর ব্যাটিং করে যাচ্ছিলেন টেস্ট স্পেশালিস্ট মমিনুল হক। কিন্তু তাকে সঠিকভাবে সঙ্গ দেওয়ার মত কেউ ছিল না। রশিদ খানের তৃতীয় ও চতুর্থ শিকার হয়ে ফিরে যান মুশফিক (০) ও মাহমুদুল্লাহ (৭)। নিজের ১৪তম ফিফটি তুলে মোহাম্মদ নবির বলে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফিরে যান মমিনুল হকও (৫২)।

তখন বাংলাদেশের স্কোর ১৩০ রানে ৭ উইকেট। এরপর মোসাদ্দেক হোসেনকে ভালই সঙ্গ দিচ্ছিলেন মেহেদি মিরাজ। কিন্তু দলীয় ১৪৬ রানে ক্লিন বোল্ড হয়ে মাঠ ত্যাগ করেন মেহেদি মিরাজ (১১)। সেখান থেকে তাইজুল ইসলামকে (১৪) সঙ্গে নিয়ে দ্বিতীয় দিন শেষ করে মোসাদ্দেক হোসেন(৪৮)।

কিন্তু তৃতীয় দিনের প্রথম ওভারেই তাইজুলকে হারান মোসাদ্দেক। শেষ ব্যাটসম্যান নাঈম ইসলাম স্কোরবোর্ডে ৭ রান যোগ করে রশিদের পঞ্চম শিকার হন। ২০৫ রানে অলআউট হয়ে যায় বাংলাদেশ।

এদিকে, দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং করতে নেমে টাইগার অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের বোলিং তোপে পড়ে আফগানিস্তান। আফগানিস্তানের স্কোরবোর্ডে ৪ রান যোগ হতে না হতেই ২ উইকেট নেই! নিজের দ্বিতীয় ওভারেই পরপর দুই বলে ইনশাল্লাহ জানাত এবং রহমত শাহকে রানের খাতা খোলার আগেই ফেরান ক্যাপ্টেন সাকিব।

আফগানিস্তানের থেকে পিছিয়ে পড়েও ঘুরে দাঁড়ানোর আশা ছাড়ছেন না বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। তার আশা ‘ম্যাজিক্যাল’ কিছু করে দেখাবে দল। দিন শেষে সাকিব আল হাসান বলেছিলেন – শেষ দুই জুটিতে তৃতীয় দিন সকালের সেশন পুরোটি কাটিয়ে দিতে চাইবে দল। মোসাদ্দেক ও তাইজুল যেভাবে ব্যাট করেছেন, তাতে কাজটি অসম্ভব মনে করছেন না বাংলাদেশ অধিনায়ক।

Agami Soft. - Inventory Management System

পাঠকের মতামত