নেইমারের ফেরার দিনে ২৮ ফাউল!

আজ বাংলাদেশ সময় ভোর সাড়ে ছয়টায় মাঠে নেমেছিল ব্রাজিল এবং কলম্বিয়া। দুদলের সর্বশেষ দেখা হয়েছিল ফিফা বিশ্বকাপের কোয়ালিফাইং রাউন্ডে। সেবার ম্যাচটি ১-১ সমতায় ড্র হয়েছিল। প্রায় দুবছর পর আবারো দেখা হল দুদলের। কিন্তু ফলাফল ছিল একই ‘ড্র’।

দুদলই নেমেছিল ৪-৩-৩ ফরম্যাটে। এই ম্যাচ দিয়ে লম্বা সময় ইঞ্জুরি কাটিয়ে জাতীয় দলের জার্সি গায়ে নামলো নেইমার জুনিয়র। ফিরমিনো ক্যাসেমিরো কৌতিনহোকে নিয়ে সাজানো দলটির কাছে ভক্তদের একটু বেশিই আশা ছিল। কিন্তু ব্যর্থ হল নেইমাররা। ম্যাচের ৫৭% বল দখলে রেখে গোল করেছে ২টি, অপরদিকে ডিফেন্স গাফলতিতে হজমও করেছে ২টি।

ম্যাচের ১৯ মিনিটের সময় দলকে এগিয়ে নিয়ে গিয়েছিলেন ক্যাসেমিরো। নেইমারের দারুন এক এসিস্টে অনেকটা মাঝ থেকে শ্যুটে বল চলে গেল কলম্বিয়ানদের জালে। কিন্তু খেলার ২৪ মিনিটে ভুল করে ফেললেন ব্রাজিলের অ্যালেক্স সান্দ্রো। নিজেদের ডি’বক্সের মধ্যেই ফাউল করে বসলেন তিনি।

যার খেসারত দিতে হল পেনাল্টিতে। কলম্বিয়ার লুইস মুরিয়েল পেনাল্টিতে কোন ভুল করলেন না। সহজভাবে স্কোরবোর্ডে সমতা ফিরিয়ে আনলেন ১-১ সমতায়। এরপর ৩২ মিনিটের মাথায় আবারও মুরিয়েল। সতীর্থ জাপাটার নিখুঁত এসিস্টে ব্রাজিলকে চমকে আরো এক গোল করে বসলো মুরিয়েল! স্কোরবোর্ড তখন ১-২।

ব্রাজিলকে চাপে ফেলে দিয়ে প্রথম হাফের খেলা শেষ করলো কলম্বিয়া। দ্বিতীয় হাফে ব্রাজিলে গোল পরিশোধ করার জন্য মরিয়া হয়ে উঠে। আরও আক্রমণ চালাতে থাকাতে। কিন্তু প্রতিবারই ব্যর্থ হয় তাদের আক্রমণ। অবশ্য খেলার ৫৮ মিনিটে আর ভুল করেননি ইঞ্জুরি থেকে ফেরা নেইমার।

দানি আলভেজের এসিস্টে দারুণ এক ক্লোজ শর্টে ২-২ সমতা আনেন নেইমার। শেষপর্যন্ত ২-২ রেখেই ম্যাচের শেষ বাঁশি বাজে। ম্যাচে ব্রাজিল ফাউল করেছে ১৫টি। অপরদিকে কলম্বিয়ার পক্ষ থেকে ফাউল আসে ১৩টি। ম্যাচের একমাত্র হলুন কার্ডের শিকার হন ব্রাজিলের ক্যাসেমিরো।

Agami Soft. - Inventory Management System

পাঠকের মতামত