এখন থেকে সৌদি ভিসা পাবেন সাতদিনের মধ্যে

এখন থেকে সৌদি আরবের ভিসা পাবেন মাত্র তিন থেকে সাত কর্মদিবসের মধ্যে। এ ব্যাপারে কিছুদিন আগে জেদ্দার আল-সালাম প্রাসাদে সাপ্তাহিক কেবিনেট বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়ে গেছে। বৈঠকে সৌদি আরবের বিভিন্ন ভিসার ফি পুণনির্ধারণও করা হয়েছে। নতুনভাবে নেওয়া সিদ্ধান্তে বলা হয়েছে, সৌদি আরবের ‘ওয়ান টাইম ভিসা’র ফি ২০০০ সৌদি রিয়াল করা হয়েছে।

কিন্তু কেউ যদি প্রথমবার হজ্জ বা ওমরা করতে যান তাহলে তার জন্য কোন ভিসা ফি দিতে হবে না। মাল্টিপল এক্সিট বা রি-এন্ট্রি ভিসার ক্ষেত্রে ৬ মাসের জন্য ফি লাগবে ৩০০০ রিয়াল। ১ বছরের জন্য লাগবে ৫০০০ রিয়াল এবং ২ বছরের জন্য লাগবে ৮০০০ রিয়াল। আবার ট্রানজিট ভিসার জন্য ফি নির্ধারণ করা হয়েছে ৩০০ রিয়াল। এ ছাড়া যারা নৌবন্দরের মাধ্যমে সৌদি আরব ত্যাগ করবেন তাদের ৫০ রিয়াল করে ফি দিতে হবে।

এসব ছাড়াও সিঙ্গেল ট্রিপ বা একবার সৌদি আরবে গিয়ে দুই মাস পর্যন্ত থাকার জন্য ভিসা ফি দিতে হবে ২০০ সৌদি রিয়াল এবং যতদিন পর্যন্ত  রেসিডেন্স পারমিট থাকবে- ততদিন পর্যন্ত প্রত্যেক অতিরিক্ত মাস থাকার জন্য ১০০ রিয়াল করে প্রদান করতে হবে। মাল্টিপল ট্রিপ বা ৩ মাস পর্যন্ত ইচ্ছামতো সৌদি আরবে প্রবেশ এবং বেরিয়ে যাওয়ার জন্য ভিসা ফি দিতে হবে ৫০০ রিয়াল এবং যতদিন পর্যন্ত  রেসিডেন্স পারমিট থাকবে- ততদিন পর্যন্ত প্রত্যেক অতিরিক্ত মাস থাকার জন্য ২০০ রিয়াল করে দিতে হবে।

এদিকে, সৌদি আরবে নতুন যে কোনো ভিসা দেওয়া হবে মাত্র তিন থেকে সাত দিনের মধ্যে। এভাবে ভিসা প্রক্রিয়াকে আরও দ্রুততর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সৌদি আরবের শ্রমমন্ত্রী। এর আগে ভিসা পেতে সময় লাগত ৯০ দিন। এর ফলে মন্ত্রণালয়ের নতুন নিয়মনীতির অধীনে সেদেশের নাগরিক, কোম্পানি ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান শ্রমিকদের জন্য ভিসা নিতে পারবেন অল্প সময়ে।

তবে  যেসব প্রতিষ্ঠান ভিসার জন্য আবেদন করবে মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ ইন্সপেক্টররা তা পরিদর্শন করবেন। তারা যাচাই করবেন যে, ওই প্রতিষ্ঠান প্রয়োজনীয় শর্ত পূরণ করেছে কিনা। যদি কোনো প্রতিষ্ঠান, ব্যক্তি বিদেশি শ্রমিক নিতে চায়- তাহলে তাদের প্রয়োজনীয় সব শর্ত পূরণ করতে বলা হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়েছে – শ্রম অফিসে ভিসার জন্য যাওয়ার আগে তারা যেন শর্ত পূরণ করে নেন। এতে ভিসা পেতে তাদের বিলম্ব হবে না। উল্লেখ্য, সৌদি আরব দীর্ঘদিন পর নতুন করে বাংলাদেশি শ্রমিক  নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। এর ফলে বাংলাদেশ থেকে সৌদি আরবে যাওয়ার জন্য শ্রমিকদের ভিসা খাতে হয়রানি কমে যেতে পারে। শ্রমিক নিয়োগকারী যেসব প্রতিষ্ঠান বিদেশি শ্রমিক নিয়োগে আধিপত্য বিস্তার করত- তার ইতি ঘটবে এ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে। শ্রম মন্ত্রণালয় এমন উদ্যোগের ইতি ঘটাতেই ভিসা প্রক্রিয়া সহজ করার ব্যবস্থা নিয়েছে।

অপরদিকে জানা যায়, স্বাস্থ্য খাতে যেসব কর্মী মার্স ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন তাদের পরিজনদের ৫ লাখ রিয়াল করে ক্ষতিপূরণ দেবে সৌদি আরব। এক্ষেত্রে কে সৌদি আরবের কর্মী, কে বিদেশি- তা বিবেচনায় আনা হবে না। সৌদি আরবের মন্ত্রিপরিষদ এ সুপারিশ করেছে। এজন্য স্বাস্থ্য, অর্থ ও সরকারি কর্মসংস্থানবিষয়ক মন্ত্রণালয়কে এসব সুপারিশ বাস্তবায়ন করতে বলা হয়েছে।

Agami Soft. - Inventory Management System

পাঠকের মতামত