মিরসরাইয়ে কিশোরীকে ধর্ষণের দায়ে যুবকের যাবজ্জীবন

মিরসরাইয়ে এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে নজরুল ইসলাম (৩৫) নামে এক আসামিকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন আদালত। গত মঙ্গলবার চট্টগ্রাম নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক মোতাহির আলী এই রায় দেন বলে জানান আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এমএ নাসের। একই রায়ে আদালত ওই কিশোরীকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগে নজরুল ইসলামকে আরো ১০ বছরের সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন।

অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় এ মামলার পাঁচ আসামিকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত। যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি নজরুল ইসলাম মিরসরাই উপজেলার মধ্যম ওয়াহেদপুর এলাকার শফিউল আলমের ছেলে। মামলায় খালাসপ্রাপ্তরা হলেন- একই গ্রামের মো. শাহাদাত, রুবেল চন্দ্র দাশ, মো. নজরুল, মো. মহিউদ্দিন ও মো. হারুন।

এডভোকেট এমএ নাসের জানান, ধর্ষণের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আদালত নজরুল ইসলামকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা এবং আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগে নজরুল ইসলামকে আরো ১০ বছরের সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন।

এমএ নাসের জানান, ২০১৩ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় মধ্যম ওয়াহেদপুর এলাকার একটি মুরগির খামারে মেয়েটি ধর্ষণের শিকার হন। অপমান সইতে না পেরে সেই রাতে ওয়াহেদপুর ইউনিয়নের গাছবাড়িয়া এলাকার জানু মুহুরী বাড়ির ডা. রবিউল হোসেনের বাড়িতে আত্মহত্যা করেন রোজিনা।

ভুক্তভোগী মেয়েটি ডা. রবিউল হোসেনের ঘরে গৃহচারিকার কাজ করতো। এ ঘটনার পরদিন পুলিশ বাদি হয়ে অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করে। তদন্তে ধর্ষণ ও আত্মহত্যার বিষয়টি এলে ২০১৩ সালের ২২ সেপ্টেম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলাটি স্থানান্তর করা হয়। ২০১৪ সালের ২১ অক্টোবর মামলায় ছয় আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত। ছয় জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আদালত এ রায় দেন।

কারাদন্ডপ্রাপ্ত আসামী নজরুল ইসলামের বড় ভাই আনিসুল ইসলাম বলেন – আমার ভাই ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত নয়। আমরা সুবিচার পাইনি। এই রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করবো।

#ইকবাল হোসেন জীবন, মিরসরাই (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি।

Agami Soft. - Inventory Management System

পাঠকের মতামত