বন্যায় নাজেহাল বাংলাদেশ, সংকটাপন্ন অবস্থায় ভারত ও নেপাল

গতকয়েক দিনের লাগাতার বর্ষণে বাংলাদেশের চট্টগ্রাম, কক্সবাজারসহ দেশের কয়েকটি অঞ্চলে দেখা দিয়েছে ভয়ংকর বন্যায়। হাজার হাজার মানুষ এখনো আছে পানিবন্দি হয়ে। তবে এটি যে শুধু বাংলাদেশেই তা কিন্তু নয়, বাংলাদেশের পাশাপাশি ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চল এবং নেপালেও একই অবস্থা বিরাজ করছে। এছাড়া বন্যায় ভূমিধসে নিহতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে।

নেপাল: নেপালে বন্যা ও ভূমিধসে নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৭ জনে। এ ছাড়া নিখোঁজ রয়েছে আরো ২৯ জন। বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলছে – গতকাল রোববার নেপালের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এমন তথ্য জানায়।

গত বৃহস্পতিবার থেকে হিমালয়কন্যা নেপালে ভারি বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় রাজধানী কাঠমান্ডুসহ মাহোত্তারি, বিরাটনগর, ললিতপুর, কাবেরি, কোটাং, ভোজপুর ও মাকানপুরে বন্যা ও ভূমিধসের ঘটনায় এসব প্রাণহানি হয়েছে। এর মধ্যে শুক্রবার রাতেই মারা যান ১৫ জন। এদিকে, কাঠমান্ডুর বিভিন্ন সড়কও বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। দুর্গত এলাকা থেকে অনেককে উদ্ধার করা হয়েছে।

India Flood

ভারত: এদিকে  ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চল অঞ্চল অর্থ্যাৎ আসাম রাজ্যের দিকে ৩৩টি জেলার মধ্যে ২৫টিই বন্যা কবলিত হয়েছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ১৫ লাখেরও বেশি মানুষ। বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় দুই হাজার গ্রামের মানুষকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। ব্রহ্মপুত্র ও এর শাখাগুলোর পানি বাড়তে থাকায় প্রতিদিনই প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। এ অঞ্চলে আরো বেশ কিছুদিন ভারি বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস থাকায় পরিস্থিতি মারাত্মক আকার ধারণ করার শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

আসামে ১০ জনসহ ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে বন্যা ও ভূমিধসে ১৬ জনের প্রাণহানির খবর পাওয়া গেছে। নেপালের পূর্বাংশ দিয়ে বয়ে যাওয়া কোসি নদীর পানি বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় সেখানে সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

Bangldesh Flood

বাংলাদেশ: অপরদিকে, টানা ভারি বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল অব্যাহত থাকায় বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। আকস্মিক বন্যায় লাখ লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। ত্রাণ সংকটের কারণে অনাহারে-অর্ধাহারে দিন পার করছেন এসব জেলার বন্যাকবলিত মানুষ। বন্যাকবলিত এলাকায় দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানির সংকট।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পানি প্রবেশ করায় বন্ধ রয়েছে পাঠদান কার্যক্রম। রাস্তায় পানি ওঠায় অনেক জেলা শহরের সঙ্গে উপজেলাগুলোর যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। বিভিন্ন জেলায় নদ-নদীর পানি বাড়ছে। প্রবাহিত হচ্ছে বিপৎসীমার ওপর দিয়ে।

এ ছাড়া ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে কক্সবাজারে ঘনবসতিপূর্ণ রোহিঙ্গা ক্যাম্পের কয়েক লাখ শরণার্থী। ভারি বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলের কারণে সৃষ্ট বন্যা ও ভূমিধসে এরই মধ্যে ক্যাম্প এলাকায় কয়েকজনের প্রাণহানির খবর পাওয়া গেছে। এ ছাড়া কক্সবাজার, রাঙামাটি ও খাগড়াছড়িতে পাহাড় ধসে প্রাণহানীর ঘটনা ঘটেছে।

প্রতি বছর জুন থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এমন বন্যার পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয় দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোকে। বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত বছর ঝড়, বন্যা ও ভূমিধসে এ অঞ্চলে এক হাজার দুইশর বেশি মানুষের প্রাণহানি ঘটে। প্রায় এক শতাব্দীর মধ্যে সবচেয়ে প্রলয়ঙ্করী বন্যায় তলিয়ে যায় ভারতের কেরালা রাজ্য।

Agami Soft. - Inventory Management System

পাঠকের মতামত