পিরোজপুরের স্বরূপকাঠিতে চলছে খাল বেদখলের মহোৎসব

প্রতিনিয়ত দখলদারদের দৌড়াত্বে দখল হয়ে যাচ্ছে স্বরূপকাঠীর ছোট বড় প্রায় এক হাজার খাল। এতে নদী ও খাল কেন্দ্রিক অর্থনীতিতে যেমন বাঁধা সৃস্টি হচ্ছে তেমনি জনজীবনেও ভোগান্তি বেড়েছে। কাঠ, পল্ট্রি, কৃষিসহ বিভিন্ন ব্যাবসায় অপরিহার্য এসব খালগুলো দখল হওয়ায় চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

উপজেলার শহীদ স্মৃতি বাজারে খালের মধ্যে ১২টি দোকানঘর তুলে ভাড়া দেওয়ায় ওই খাল দিয়ে যাতায়াত করতে পারছেনা ইন্দেরহাটগামী পণ্যবাহি ট্রলার। উক্ত দোকানের ব্যাবসায়িরা জানান, তারা সাবেক সচিব মোঃ শামসুল হকের থেকে দোকানঘর ভাড়া নিয়েছেন এবং শহীদ স্মৃতি বাজারের মালিক তিনি একাই।

এ ব্যাপারে ট্রলার চালক আলম বলেন – শহীদ স্মৃতি বাজারের খালের ভিতর দোকানঘর তোলায় তিনি ট্রলার নিয়ে যাতায়াত করে পারেন না। প্রায় চার ঘন্টার পথ বেশি ঘুরে কালিগঙ্গা নদী হয়ে ইন্দেরহাট বাজারে যেতে হয়। এতে যাতায়াতের খরচ প্রায় পাঁচ গুন বেড়ে যায় এবং প্রতি ট্রিপে একদিন চলে যায়। যা দোকানঘর তোলার আগে মাত্র এক ঘন্টাই ইন্দেরহাট পৌছা যেত।

১৯৬১ সালে প্রতিষ্ঠিত বিসিক শিল্প নগরীর একমাত্র খালটি দখল করে রেখেছে স্থানীয় কাঠ ব্যাবসায়িরা। এতে পণ্য পরিবহনে বাঁধার সম্মুখীন হচ্ছেন এখানকার শিল্প মালিকগণ। এ বিষয়ে বিসিক ম্যানেজার হারুন-অর-রশিদ বলেন – বিসিকের একমাত্র খালটি দখল মুক্ত করতে আমরা দখলদারদের নোটিশসহ মাইকিংও করিয়েছি কিন্তু সব বিফলে গেছে।  উপজেলা সমন্বয় মিটিংএ এবিষয়টি উৎথাপন করতে করতে আমি হাসির পাত্র হলেও এখন পর্যন্ত কোন সুরহা পাইনি।

এদিকে মিয়ারহাট বাজারের তিনটি কালভার্ট থাকলেও নেই খাল। দিনে দিনে খাল তিনটি ভরাট করে দোকানঘর তৈরী করা হলেও কালভার্ট আজও বিদ্যমান। মিয়ারহাটের যানযট কমাতে খালপাড় থেকে বাইপাশ সড়কের কাজও বন্ধ হয়ে আছে অবৈধ দখলের কারণে। বাজার থেকে ছোট লঞ্চঘাট পর্যন্ত রাস্তা নির্মাণ করে খালে লোহাপুল করা হলেও বাজারের উত্তর পাশের সরকারি খালের জায়গা দখল করে দোকানঘর করা দখলদারদের কারণে রাস্তাটি সে পর্যন্তই থেমে আছে।

এ ব্যাপারে সুটিয়াকাঠীর ইউপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ইদ্রীস আলী বলেন – বাজারের খাল পাড় থেকে একটি বাইপাস রাস্তার স্বপ্ন ছিল গাইছ চাচার (প্রায়াত চেয়ারম্যান সুটিয়াকাঠী ইউপি)। সে অনুযায়ী আমরা কাজ করছি। দখলদারদের নোটিশ করা হয়েছে, একজন দখলদার জায়গা খালিও করেছে, বাকীদের ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।

অন্যদিকে, বিন্না বাজারে ক্লাব ও বিন্না মাঃ বিঃ মিলে খালের ভিতর দোকানঘর তুলে ভাড়া নেয়াসহ উপজেলার প্রতিটি বাজার- মহল্লায় যে যার মত করে খাল ভরাট করে দোকানঘর তুলে ব্যাবসা বা ভাড়া দিচ্ছেন।

এসব বিষয়ে স্বরূপকাঠী কাঠ মহলের ব্যাবসায়িরা বলেন – খালগুলো দখল হওয়া এবং নাব্যতা না থাকায় কাঠ নিয়ে ট্রলার চলাচল করতে পারেনা। অপেক্ষাকৃত ছোট খালগুলো দিয়ে চলাচল করতে না পারায় অনেক পথ বেশি ঘুরে আসতে হয় এতে আমাদের পরিবহন খরচ কয়েকগুণ বেড়ে গেছে। পল্ট্রি ব্যাবসায়িরা খাদ্য, ডিম ও মুরগী যাতায়াতে চরম ভোগান্তির কথা জানান।

এ বিষয়ে সহকারি কমিশনার(ভূমি) মোঃ মেহেদি হাসান বলেন – স্বরূপকাঠীতে ছোট বড় মিলিয়ে প্রায় এক হাজার খাল রয়েছে যা প্রতিনিয়ত দখলদাররা নিজ স্বার্থে দখল করে নিচ্ছে। খাল গুলো এ উপজেলার অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখছে, খালগুলোতে নৌকা চলাচল করে। প্রতিটি ইউনিয়ন ভূমি অফিসকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে তারা নিয়ম অনুযায়ী সরকারি সম্পদ দখলের বিষয়ে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিবেন এবং সে অনুযায়ী দখলদারদের নোটিশ দেয়া হবে। নোটিশ অমান্যকারিদের উচ্ছেদের মাধ্যমে সরকারি সম্পদ দখল মুক্ত করা হবে।

#অনিমেশ হালদার, পিরোজপুর প্রতিনিধি।

Agami Soft. - Inventory Management System

পাঠকের মতামত