সাকিবের চোট নিয়ে যা বললো টিম ম্যানেজমেন্ট

গতকাল আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে হেসেখেলেই জয় পায় বাংলাদেশ। আয়ারল্যান্ডের দেওয়া ২৯২ রানের মোটামুটি বড় টার্গেটকে একদম উড়িয়ে দিলেন তামিম, লিটন, সাকিবরা। গতকালকের ম্যাচে বাংলাদেশ ৬ উইকেটে জয় নিয়ে মাঠা ছাড়ে টাইগাররা।

তবে এই জয়ের পরেও কিছুটা দুঃশ্চিন্তায় আছে বাংলাদেশ। গতকালকের ম্যাচে ইঞ্জুরিতে পড়ে অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। হাফসেঞ্চুরি করার পথে পুল করতে গিয়ে বাঁ পাশের পাঁজরে ব্যাথা অনুভব করেছিলেন সাকিব। পরে নিজে থেকে রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন।

যদিও তার এই চোট গুরুতর নয় বলেই অনুমান করা হচ্ছে। তবে সাকিবের এই চোট বাংলাদেশ দল ও সমর্থকদের কপালে এনে দিয়েছে দুশ্চিন্তার ভাঁজ। ধারণা করা হচ্ছে, তার এই চোটটি সাইড স্ট্রেইন। সাইড স্ট্রেইন হয়ে থাকলে এই চোট সেরে ওঠার জন্য খুব বেশি সময় লাগার কথা নয়। তবে টিম ম্যানেজমেন্টের আনুষ্ঠানিক ঘোষণার আগ পর্যন্ত নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না কিছুই।

ম্যাচে বাংলাদেশের ইনিংসের ৩৬তম ওভারে ব্যাট করার সময় হঠাৎ ব্যথা অনুভব করলে মাটিতে শুয়ে পড়েন সাকিব। সাথে সাথে মাঠে প্রবেশ করেন টাইগারদের ফিজিও থিহান চন্দ্রমোহন। ফিজিওর শুশ্রূষায় খানিক পর সাকিব উঠে দাঁড়ান এবং আবারো ব্যাটিং শুরু করেন।

তবে পরের ওভারে অর্ধ-শতক পূর্ণ করার পর মাঠ ছেড়ে চলে যান সাকিব। পরবর্তীতে জানা যায়, অকস্মাৎ আবির্ভূত এই চোটের পর ঝুঁকি এড়াতেই রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে মাঠ ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেন তিনি।

যদিও সাকিবের এই চোটের ধরন ‘গুরুতর’ নয়। টিম ম্যানেজমেন্ট সূত্রে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, সাকিবের এই চোট গুরুতর নয় বলেই প্রত্যাশা করছেন ফিজিও ও টিম ম্যানেজমেন্টের সদস্যরা। বৃহস্পতিবার (১৬ মে) সাকিবের চোট নিরীক্ষার পরই বোঝা যাবে, পুরো ফিট হয়ে উঠতে টাইগার সহ-অধিনায়কের কতটুকু সময় লাগবে। তার আগ পর্যন্ত সাকিবকে ফাইনাল ম্যাচে পাওয়া নিয়ে শঙ্কা একটু হলেও থাকছে।

পাঠকের মতামত