এক নজরে দেখে নেওয়া যাক রোজা রাখার উপকারিতা

মহান আল্লাহ প্রত্যেক প্রাপ্তবয়স্ক মুসলিমের জন্য রোজা ফরজ করেছেন। কিন্তু অনেকই মনে করেন রোজা রাখলে শরীরের ক্ষতি হয়। যেহেতু সারাদিন রোজা রাখলে পানি বা অন্যান্য কোনকিছুই খাওয়া হয় না এতে শরীরের উপর বিরূপ প্রভাব পড়ে। কিন্তু এমনটা একদমই ঠিক নয়।

চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা গবেষণা করে দেখেছেন, রোজা রাখার ফলে শরীরে একটি নয় কয়েকটি উপকারিতা বয়ে আনে। বিজ্ঞানীরা বলেন – রোজা রাখার ফলে আমরা নিজের অজান্তেই স্বাস্থ্যের বিভিন্ন উন্নতি করছি। এমনকি অসুস্থ ব্যক্তিদের জন্যও রোজা রাখা উপকারী বলে মনে করছে চিকিৎসাবিজ্ঞান।

চিকিৎসাবিজ্ঞানীদের মতে  – রোজা একই সঙ্গে শরীরের জন্য রোগ প্রতিরোধক ও প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করে। রোজা পালনের ফলে দেহে রোগবর্ধক অনেক জীবাণু ধ্বংস হয়। শরীরে ইউরিক এসিডের মাত্রা বৃদ্ধি পেলে নানা প্রকার নার্ভ-সংক্রান্ত রোগ বৃদ্ধি পায়। এক মাস রোজার (রমজান মাসে) ফলে জিহ্বা ও লালাগ্রন্থি বিশ্রাম পায়। ফলে এগুলো সতেজ হয়। যারা ধূমপান করেন তাদের জিহ্বায় ক্যান্সারের মতো রোগ হওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে। তবে এক মাস রোজার সময় ধূমপান কম করেন বলে ধূমপায়ীরা উল্লিখিত রোগগুলো হওয়ার আশঙ্কা কম।

বিজ্ঞানীরা আরো জানান, এক মাস রোজা রাখার ফলে ফলে জিহ্বায় খাদ্যদ্রব্যের স্বাদও বৃদ্ধি পায়। বিশেষ করে তাদের বেলায়, যারা অত্যধিক ধূমপান আর পান খেয়ে জিহ্বায় খাদ্যদ্রব্যের স্বাদ হারিয়েছেন। রোজা রাখার ফলে শরীরের সব অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ বিশ্রাম পায়। দৈনিক গড়ে প্রায় ১৫ ঘণ্টা উপবাসের সময় লিভার, কিডনি ও মূত্রথলি প্রভৃতি অঙ্গ বেশ উপকারিতা লাভ করে।

যাদের লিভার ও প্লিহা বড় হয়ে গেছে, রোজার তাদের ওই বর্ধিত অংশ আপনাআপনি কমে আসতে সাহায্য করে। কিডনি ও মূত্রথলির নানা প্রকার উপসর্গ রোজার ফলে নিরাময় হওয়ার সম্ভাবনা আছে। রোজার ফলে অগ্ন্যাশয় (Pancreas) থেকে হজমের রস দিনের বেলায় নির্গত বন্ধ থাকে বিধায় তা-ও একমাস বিশ্রাম পায়। ফলে অগ্ন্যাশয়ের কারণে বহুমূত্র রোগ উপশম হয়।

আরো পড়ুন>> আপনার ইফতারটা ঠিক এমন হওয়া উচিত!

অতিভোজনের ফলে অনেকেরই পাকস্থলি বড় (Hypertrophy of the Stomach) হয়ে যায়। রোজার ফলে বড় পাকস্থলি স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসে এবং তার প্রকৃত অবস্থা ধারণ করে। পাকস্থলি একটি বৃহদাকার পেশিবিশেষ। শরীরের অপরাপর পেশির মতো এরও বিশ্রামের প্রয়োজন রয়েছে। একে বিশ্রাম দেওয়ার একমাত্র পথ এর মধ্যে খাদ্য প্রবেশ না করানো, অর্থাৎ রোজা রাখা।

রোজার রাখার ফলে শরীরের কিছু অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ বিশেষভাবে উপকারিতা লাভ করে। রোজা রাখার ফলে এগুলো বিশ্রাম নিতে পারে। এছাড়াও রোজার রাখার হাজারো উপকারিতা আছে।

এক নজরে রোজা রাখার কিছু উপকারিতা :-

  1. রোজা মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি করে

  2. ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ করে

  3. ফ্যাট কমায়

  4. হজম ক্রিয়ার বিশ্রাম ঘটায়

  5. চর্মরোগ নিরাময় করে

  6. নেশা থেকে মুক্তি দেয়

  7. ভোজনবিলাস কমায়

রোজা রাখার ফলে সওয়াব হাসিলের পাশপাশি আমাদের শরীরের প্রতিটি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের কমবেশি উপকার হয়। বিভিন্ন রোগব্যাধি থেকে আমরা মুক্তি পেতে পারি। তাই আসুন, ফরজ রোজা ছাড়াও বছরজুড়ে আমরা সবাই নফল রোজা রাখার অভ্যাসও গড়ে তুলি।

Agami Soft. - Inventory Management System

পাঠকের মতামত