পিরোজপুরের স্বরূপকাঠীতে ক্যাডার রূপে নির্বাচন কর্মকর্তা ইউসুফ হারুন

পিরোজপুরের স্বরূপকাঠীতে সেবা নিতে আসা সাধারণ মানুষের সাথে অসদাচরণ ও গাঁয়ে হাত তোলার অভিযোগ পাওয়া গেছে নির্বাচন কর্মকর্তার ইউসুফ হারুনের বিরুদ্ধে। তিনি নেছারাবাদ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার পদে অতিরিক্ত দ্বায়িত্ব পালন করছেন। গতকাল সোমবার বেলা ১২ টার দিকে উপজেলার সোহাগদল গ্রামের শোভন নামের এক ব্যাক্তি তার ভোটার আইডি কার্ডের ভুল সংশোধন করাতে গেলে এ ঘটনা ঘটে।

শোভন জানায়, শোভনের জাতীয় পরিচয়পত্রে তার মায়ের নাম ভুল হওয়ায় সে তা সংশোধনের জন্য ওই দপ্তরে যোগাযোগ করেন। দীর্ঘ দিন ঘুরাঘুরির পরে একই গ্রামের পাঁচজন ব্যাক্তির ভোটার নম্বরসহ সুপারিশ করলে তাকে ভুল নাম সংশোধন করে দেয়া হবে বলে ইউসুফ হারুন। শোভন ইতোপূর্বে ইউসুফ হারুনের কথা মত চেয়ারম্যান উত্তরাধীকারপত্রও সংগ্রহকরে তার নিকট নিয়ে যায় এবং তিনজন ভোটার সুপারীশের জন্য নিয়ে যায়। এসময় ইউসুফ অন্যান্য লোকজনের কাজ করছিলেন।

একপর্যায় সুপারিশকারীরা ব্যাস্ততার কথা জানাতে ইউসুফ আলীর সাথে কথা বলতে চাইলেই ইউসুফ আলী শোভনসহ তিন সুপারিশকারী উপর উত্তেজিত হয়ে বলেন, ‘আপনাদের কাজ করবনা, যান এখান থেকে।’ এক পর্যায় তার এমন আচারনের প্রতিবাদ জানালে তার অফিসের অন্যান্য কর্মচারীদের দিয়ে সুপারীশকারীদের টেনেছিচড়ে রুমের মধ্যে আটকে রাখতে উদ্যত হন। এসময় শোভন ও সুপারীশকারীগণ অন্যত্র তার অফিস ত্যাগ করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরকার আব্দুল্লাহ্ বাবুকে বিষয়টি অবহিত করেন। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিষয়টি দেখবেন বলে জানান এবং শোভনকে তার রুমে রেখে জাতীয় পরিচয়পত্রের ভুল সংশোধনের ব্যবস্থা গ্রহন করেন।

এ ব্যাপারে নির্বাচন কর্মকর্তা ইউসুফ হারুন বলেন – আমার অফিসের লোক তাদেরকে বিষয়টি বুঝাবার জন্য হাত ধরেছিল। বাকবিতান্ডা হয়েছিল আমি ব্যাস্ত ছিলাম আর শোভনের তদন্তের বিষয় আছে তাই দেরি হবে এজন্য তার কাজ সবার শেষে করব ঠিক করেছি, তারা কাজের মাঝে কথা বলায় বলেছি তার কাজ করব না।

এ ব্যাপারে সুপারিশকারী কাওসার হোসেন বলেন – নির্বাচন কর্মকর্তার অসদাচারণের কারণেই তার সাথে বাকবিতান্ডা হয়, তিনি একজন অফিসার নয় মাস্তানের মত আচারণ করেছেন, এমনকি তার লোক দিয়ে ধরে রাখতেও চেয়েছেন। আরেক সুপারিশকারী নূরে আলম বলেন – মানুষের সাথে এধরণের আচরণ না করলে ওনাদের মত অফিসারগন চাকরীর বাহিরের আয় করতে পারেন না, অত্র অফিসের দালাল ইব্রাহীমকে দিয়ে এ অফিসের যাবতীয় আবেদনসহ ফরম ফূরণের কাজ করিয়ে জনগণের কাছ থেকে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে প্রতিনিয়ত। ইব্রাহীমের বিষয়ে পত্রিকায় বিগত দিনে রিপোর্ট হলেও এধরণের অফিসারদের কারণে ইব্রাহীমরা বহাল তবিয়াতে রয়েছে।

#অনিমেশ হালদার, পিরোজপুর প্রতিনিধি।

Agami Soft. - Inventory Management System

পাঠকের মতামত