নির্যাতনের মাত্রা সহ্য করতে না পেরে দোতলা থেকে লাফ দেয় গৃহকর্মী! কিন্তু………

ছবি: সংগৃহীত।

চট্টগ্রামের কতোয়ালী থানার কাজীর দেউড়ির একটি বহুতল ভবন থেকে লাফিয়ে পালানোর চেষ্টা করে কবিতা রানি (১১) নামের এক গৃহকর্মী। জানা যায়, সে মালিকের নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে সে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিল। কিন্তু নামার সময় ক্যাবল টিভি ও ইন্টারনেটের তার বেয়ে নামার সময় আটকে যায় সে। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে শাড়ি দিয়ে বেঁধে নিরাপদে নিচে নামিয়ে আনে।

গত মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) বিকেল পাঁচটার দিকে এসএস খালেদ সড়কের স্যানমার এলোভেরা নামের আবাসিক ভবনের ষষ্ঠতলায় ‘বি-৪’ ফ্ল্যাটের চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) প্রকৌশলী বিকিরণ বড়ুয়া রাসেলের বাসার শিশুকর্মী ৬ তলা থেকে তার বেয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে।

গৃহকর্মী কবিতা রানি সাংবাদিকদের বলে – গৃহকর্তার মারধর সহ্য না করতে পেরে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিলাম। তাই কিচেনের ব্যালকনির পাশ দিয়ে তার বেয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছি।

শিশুটিকে উদ্ধারের ঘটনা দেখতে শত শত কৌতূহলী মানুষের ভিড় জমে যায়। ৯৯৯ নম্বরে কল পেয়ে ছুটে আসে কোতোয়ালী থানার টহল টিম এবং ফায়ার সার্ভিসের আগ্রাবাদ ও নন্দনকানন স্টেশনের দুইটি গাড়ি।

কাজীর দেউড়ি এলাকার কলেজছাত্র সাফায়াত কবির বলেন – মেয়েটি দোতলার সানশেডে আটকে পড়েছিল। সে নিচেও নামতে পারছিল না, আবার উপরেও উঠতে পারছিল না। আমরা কয়েকজন মেয়েটিকে শাড়ি বেঁধে নামিয়ে আনি। এ সময় পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস চলে আসে ঘটনাস্থলে।

এদিকে, মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করে গৃহকর্তা বিকিরণ বড়ুয়ার মা অপর্ণা বড়ুয়া বলেন – ছেলে, বউমা ও আমি থাকি এ ফ্ল্যাটে। মেয়েটি এসেছে মাত্র ৫ দিন হলো। বউমার শারীরিক অসুস্থতার জন্যই মেয়েটিকে আনা হয়েছে। অনেক আদর-যত্ন করি আমরা। মারধরের প্রশ্নই আসে না। সে হয়তো বাড়ি চলে যাওয়ার জন্য অস্থির হয়ে গেছে। সকাল পাঁচটায়ও সে একবার নিচে চলে যায়। তখন দারোয়ানরা তাকে ধরে আনে।

কোতোয়ালী থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. কামরুজ্জামান বলেন – ৯৯৯-তে ফোনে বিষয়টি জানান স্থানীয় লোকজন। খবর পেয়ে আমাদের টহল টিম দ্রুত ঘটনাস্থলে চলে আসে। পুরো ঘটনাটি তদন্ত করছে পুলিশ।

Agami Soft. - Inventory Management System

পাঠকের মতামত