মিশনারী হসপিটালে সেবার নামে কি হচ্ছে এসব?

ব্যাপ্টিষ্ট মিড-মিশনস হসপিটাল-নাটোর সেবার নামে প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে ১৩ তারিখ শনিবার সকালে। দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে সেবা নিতে বর্হি:বিভাগে ভিড় করে প্রায় অর্ধহাজার লোক। তখন সকাল নয়টা। হঠাৎ হসপিটাল কর্তৃপক্ষ জানায় আজ আর কোন রোগীর সিরিয়াল নেওয়া হবে না। তখনই ভুক্তভোগীরা অভিযোগ নিয়ে উর্ধতন কর্মকর্তার সাথে দেখা করতে চাইলে। উর্ধতন কর্মকর্তা দেখা করতে নাখোজ করে দেন।

কর্মকর্তা খুব ব্যস্ত আছে বলে দেখা করতে পারবে না বলে জানিয়ে দেয় একজন মহিলা কর্মচারী। এদিকে প্রশাসনিক ভবনের সামনে ভুক্তভোগী সংখ্যা বাড়তে থাকে। পরিস্থিতি বেগতির দেখে একজন কর্মকর্তা এসে পাবলিক পরিস্থিতি সামাল দেওয়া চেষ্টা করেন। এই সময় একজন অনলাইন পত্রিকার প্রতিবেদক ভয়েজ রেকর্ড করার চেষ্টা করলে কর্মকর্তা প্রতিবেদকের উপর চড়াও হয়ে বসেন। এরপর প্রতিবেদকের ইলেকট্রিক ডিভাইসটি ছিনিয়ে নেন।

এছাড়াও প্রতিবেদকে বেশ হেনস্থা করেন প্রশাসনিক ইউনিটের বরুণ নামের একজন কর্মচারী। কিছুটা কাল বিলম্ব করে রেকর্ডিং টি মুচে ফেলে তার ডিভাইস টি ফেরত দেন বরুণ নামের সেই কর্মচারী এবং রাজনৈতিক হুমকি দেন ঐ প্রতিবেদকে। পরে অবশ্যই এই অনাকাঙিক্ষত ঘটনা জন ড. ফিলিফ দুঃখ প্রকাশ করেছেন এবং এই অনাকাঙিক্ষত ঘটনা সাথে যারা জড়িত
তাদের উপর ব্যবস্থা নিবেন বলে জানিয়েছেন।

রোগীরা বিডি৩৬০নিউজের কাছে অভিযোগ করে বলেন – এই হসপিটালের অনলাইন কোন সংস্কার নাই । যার ফলে তারা কিছুই না জেনে বিভিন্ন জেলা থেকে এসে সারারাত অপেক্ষা করে ডাক্তারে দেখা না পেয়ে রিক্ত হস্তে ফিরে যেতে হচ্ছে । আবার কেউ কেউ অভিযোগ করেন – দুর্নীতি করে সিরিয়াল দিচ্ছেন কর্মচারীগণ।

অবশেষে ড.ফিলিফ জানান যে ডাক্তার যথেষ্ট পরিমাণ না থাকায় তারা পর্যাপ্ত পরিমাণ রোগীর সেবা দিতে পারছেন না। তবে একশত রোগী দেখার ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছে। তিনি আরও জানান যে, যদি কোন কর্মচারী দুর্নীতি করে থাকেন তার ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

#শাবলু শাহাবউদ্দিন, নাটোর প্রতিনিধি।

পাঠকের মতামত