মেসির রক্ত দিয়ে বার্সার জয়খরা কাটলো

অবশেষে জয়খরা কাটলো বার্সেলোনার। তবে তার জন্য রক্তও ঝরাতে হয়েছে বার্সা তারকা লিওনেল মেসিকে। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে ১-০ গোলে জয় পায় বার্সা। আর এই জয়ে টুর্নামেন্টের সেমিফাইনালে পথে আরো একধাপ এগিয়ে গেলেন কাতালানরা।

চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ আটের প্রথম লেগে বুধবার ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে আতিথ্য নেয় বার্সা। ইংলিশদের ডেরায় ইংলিশদের উপরই একেবারে ঝেঁকে বসলেন বার্সেলোনার খেলোয়াড়রা। আক্রমণের পর আক্রমণ করতে থাকেন ইংলিশ ক্লাবটির জালে। সেই তোড় সামলাতে পারেনি ম্যানইউ। রক্ষণ আগলে রাখলেও দ্বাদশ মিনিটে আত্মঘাতী গোলে পিছিয়ে পড়েন স্বাগতিকরা।

ডি-বক্স থেকে চিপ শটে ডানদিকে বন্ধু লুইস সুয়ারেজকে বল বাড়ান লিওনেল মেসি। তাতে হেড করেন উরুগুইয়ান স্ট্রাইকার। সেটি ম্যানইউ ডিফেন্ডার লুক শ’র গায়ে লেগে গোললাইন পেরিয়ে যায়। প্রথমে অফসাইডের পতাকা তোলেন লাইন্সম্যান। তবে ভিএআরের সাহায্য নিয়ে গোলের বাঁশি বাজান রেফারি।

এগিয়ে গিয়ে আত্মবিশ্বাসী হয়ে ওঠে বার্সা। আক্রমণের গতি সচল থাকে। সেই রেশের মধ্যে ৩১ মিনিটে মেসিকে বাজে ট্যাকল করেন ক্রিস স্মলিং। এতে ছোট জাদুকরেরর নাক দিয়ে রক্ত ঝরতে থাকে। মাঠ ছেড়ে বেরিয়ে যান তিনি। সাইডলাইনে কিছুক্ষণ চিকিৎসা নিয়ে ফের মাঠে ফেরেন পাঁচবারের ফিফা বর্ষসেরা ফুটবলার।

ম্যাচের বাকি সময়ে গোল পরিশোধে মরিয়া আক্রমণ চালিয়েছে ম্যানইউ। ঘর সামলে অসংখ্যবার প্রতি আক্রমণে উঠেছেন রেড ডেভিলরা। তবে গোলমুখ খুলতে পারেননি তারা। অবশ্য বেশ কয়েকটি সুযোগ পেয়েছেন। কিন্তু সাফল্য আদায় করতে পারেননি।

পরের সময়ে কয়েকটি সহজ সুযোগ পেয়েছে বার্সাও। কিন্তু তারাও কাজে লাগাতে পারেননি। ছিল ফিনিশিংয়ের দারুণ অভাব। শেষ পর্যন্ত ১-০ গোলের জয় নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয় আর্নেস্তো ভালভার্দের শিষ্যদের।  আগামী মঙ্গলবার বার্সার মাঠ ন্যু ক্যাম্পে হবে ফিরতি পর্ব। সেখানে ড্র করলেই শেষ চারের টিকেট পাবে পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নরা।

পাঠকের মতামত