সস্তার সানগ্লাস ব্যবহার করে চোখের ক্ষতি করবেন না

‘সান গ্লাস’ বা রোদ চশমা। আধুনিক ফ্যাশনের একটি অন্যতম অংশ। ছোট বড় সবাই এখন নানা আকারের বাহারি ডিজাইনের সানগ্লাস ব্যাবহার করে থাকেন। বিশেষ করে বাইকাররা সানগ্লাস ছাড়া বাইক চালানোর কথা চিন্তাও করতে পারেন না। পাশের বাড়ির রুপসী মেয়েটিও এখন ম্যাচিং ড্রেসের সাথে ম্যাচিং সানগ্লাস কিনতে পছন্দ করে।

এই রোদ চশমা বা সানগ্লাস ফ্যাশনের পাশাপাশি চোখের জন্যও খুব উপকারি। রোদচশমা মানেই সূর্য্যের অতিবেগুনী রশ্নি থেকে দেহের মুল্যবান ইন্দ্রীয় চোখকে বাঁচানো। তাছাড়া এটি রাস্তার ধুলাবালি, পোকা-মাকড়ের হাত থেকে চোখকে রক্ষা করে। এই ধরুন, চলন্ত মোটর সাইকেলে আপনার চোখে কিছু এসে পড়লো, আর আপনি নিয়ন্ত্রণ হারালেন। এমনটা যাতে না ঘটে সে জন্য সানগ্লাস খুবই গুরুত্বপুর্ণ।

এখন এই প্রতিবেদন পড়ে আপনি হয়তো বাজারে গিয়ে একটি সানগ্লাস কিনেই নিলেন। সস্তার মধ্যে খুব সুন্দর একটি সানগ্লাস। আসলে আপনার সানগ্লাসটা খুব সুন্দর তাতে আমার কোন সমস্যা নেই। আমার সমস্যা হচ্ছে সানগ্লাসটির মুল্য নিয়ে। কারণ আপনার এই কম দামী সানগ্লাস আপনার চোখের জন্য ডেকে নিয়ে আনতে পারে কঠিন বিপদ।

চশমাতো চোখকে রক্ষা করে, ক্ষতি আবার কেমন করে হয়?  সস্তা সানগ্লাস তৈরীতে ব্যাবহার করা হয় নিম্ম মানের প্লাস্টিক। এর ফলে নিম্ম মানের প্লাস্টিকটি সূর্য্যের অতি বেগুনী রশ্মি আটকাতে পারেনা। এতে চোখেরতো চার আনার উপকার হবেনা উল্টো চোখের বিরুদ্ধে হয়ে উঠবে মারাত্মক ক্ষতিকর।

ওই যে কথায় আছেনা, সস্তার তিন অবস্থা। যে ভয়ংকর রশ্মি থেকে চোখকে বাঁচাতে গেলেন সেটিই হয়ে উঠতে পারে চোখের ঘাতক। রোদের থেকে চোখ বাঁচাতে গিয়ে নিজেদের অজান্তেই উল্টো চোখের বিপদ ডেকে আনছেন। চক্ষু বিশেষজ্ঞরা বলেন – বড়দের পাশাপাশি ছোটরাও চশমা পড়তে পছন্দ করে। ছোটরা চশমা পড়ার জন্য জিদ করলে আমরা মেলা বা ফুটপাত থেকে চশমা কিনে দেই। কিন্তু এই ধরণের চশমা বাচ্চাদের চোখের জন্য খুবই ক্ষতিকর হয়ে উঠতে পারে। এসব সানগ্লাস বেশী ব্যাবহার করলে চোখে ছানি পড়ার সম্ভাবনা থাকে। এমনকি হঠাৎ করে চোখের কর্নিয়া শুকিয়ে যেতে পারে।

মনে রাখবেন যে কোনও সানগ্লাস সূর্যের ক্ষতিকর অতিবেগুনি রশ্মির কুপ্রভাব থেকে চোখকে বাঁচাতে পারে না। শুধু মাত্র পলিকার্বোনেট লেন্সই সূর্যের ক্ষতিকর অতিবেগুনি রশ্মি আটকাতে পারে। এছাড়া, সস্তার রঙিন চশমা অতিরিক্ত ব্যবহারের ফলে ‘Refractive ERROR’ বা চোখের প্রতিসারক সমস্যা বহুগুণ বেড়ে যায়।

অক্ষিগোলকের অস্বাভাবিক আকার এবং বক্রতার কারণে প্রতিসারক ত্রুটির সমস্যা দেখা যায়। রিফ্রাক্টিভ ইররের ফলে দৃষ্টি শক্তি ঝাপসা হয়ে যেতে পারে। খুব দূরের বা খুব কাছের কিছু দেখতে সমস্যা হতে পারে। এছাড়াও সস্তার রঙিন চশমা অতিরিক্ত ব্যবহারের ফলে ‘EYELID Cancer’ বা চোখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও তৈরি হয়। তাই সানগ্লাস কেনার ক্ষেত্রেও প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। আর সবশেষে ‘ জিনিস যেটা ভালো দাম তার একটু বেশি’। তাই নিম্ম দামের সানগ্লাস ব্যবহারে থেকে বিরত থাকুন।

#শুভ আহম্মেদ, বিডি৩৬০নিউজ।

আরও পড়ুন >>>

পাঠকের মতামত