কালোজিরাকে কেনো মহৌষধ বলা হয়?

কালোজিরা এমন এক ধরণের বীজ – যা মশলা হিসেবে বিভিন্নরকম রান্নায় ব্যবহার করা ছাড়াও রোগ নিরাময়ে ব্যবহৃত হয়। এতে আছে ফসফেট, লৌহ ও ফসফরাস। এছাড়াও রয়েছে ক্যানসার প্রতিরোধক কেরটিন, বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধকারী উপাদান এবং অম্ল রোগের প্রতিষেধক। কালোজিরা আমাদের কাছে মহৌষধ। নামেও পরিচিত। কিন্তু কেনো?

যেসব কারণে কালিজিরাকে মহৌষধ বলা হয়ে থাকে :

  • কালোজিরার তেল শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।
  • কালোজিরায় রয়েছে ক্ষুধা বাড়ানোর উপাদান। পেটের যাবতীয় রোগ-জীবাণু ও গ্যাস দূর করে ক্ষুধা বাড়ায়। যারা মোটা হতে চান, তাদের জন্য কালোজিরা উপকারী পথ্য।
  • মায়ের বুকে দুধের পরিমাণ বৃদ্ধি করতে কালোজিরার তেলের তুলনা হয় না।
  • ইনসুলিন রোধ হ্রাস করে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখে।
  • কালোজিরায় থাকা অ্যান্টিমাইক্রোরিয়াল এজেন্ট শরীরের রোগ-জীবাণু ধ্বংস করে। এই উপাদানের জন্য শরীরে সহজে ঘা, ফোড়া, সংক্রামক রোগ হতে বাধা দেয়।
  • জ্বর, কফ, গায়ের ব্যথা দূর করার জন্য কালোজিরা যথেষ্ট উপকারী বন্ধু।
  • কাশি ও হাঁপানির উপশম, স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি, হৃদরোগের আশঙ্কা হ্রাস করে।
  • চুল পড়া কমাতে ও ত্বকের সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে কালোজিরার তেলের তুলনা হয় না।
  • যাদের শরীরে পানি জমা বা হাত-পা ফুলে যাওয়ার সমস্যা রয়েছে, তাদের জন্য এই তেল বেশ উপকারী।
  • দাঁতে ব্যথা হলে কুসুম গরম পানিতে কালোজিরা দিয়ে কুলি করলে ব্যথা কমে। জিহ্বা, তালু, দাঁতের মাড়ির জীবাণু মরে।
  • মেধার বিকাশের জন্য কালোজিরার তেল কাজ করে দ্বিগুণ হারে।
  • কালোজিরা কৃমি দূর করার জন্য কাজ করে। তারুণ্য ধরে রাখে দীর্ঘকাল।

পাঠকের মতামত