চবিতে অন্তর্কলহ নিয়ে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ

২১ গ্রেনেড হামলার রায়ের পর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ছাত্রলীগের একাংশ (বিজয় গ্রুপ) ক্যাম্পাসে খুশির মিছিল বের করে। মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের জিরো পয়েন্ট থেকে শুরু হয়ে কলা ও মানববিদ্যা অনুষদে অবস্থিত প্রক্টর অফিসের সামনে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে পূর্ব থেকে বিরাজমান অন্তর্কলহ নিয়ে ক্যাম্পাসে অবস্থানরত (বিজয় ও সিএফসি) দুই গ্রুফের মাঝে সংঘর্ষ শুরু হয়। খোঁজ নিয়ে জানা যায় তারা উভয়ে প্রয়াত নেতা এ বি এম মুহিউদ্দিন চৌধুরীর অনুসারী। দুই দফা পাল্টা হামলায় উভয় পক্ষের ৫ জন অাহত হয়।

অাহতরা হলেন – ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের (২০১৬-১৭) শিক্ষাবর্ষের নাসিম চৌধুরী, একই বর্ষের অর্থনীতি বিভাগের মো. মোহাইমিনুল ইসলাম (২০১৩-১৪) শিক্ষাবর্ষের মার্কেটিং বিভাগের রেদওয়ান ইবনে সাত্তার, একই বর্ষের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শরীফুল ইসলাম ও ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের আইন বিভাগের সাদাফ খান।

আহতদের বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা কেন্দ্রে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে বলে জানান, দায়িত্বরত চিকিৎসক। প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, প্রথমে দুপুর দেড়টা এবং পরে বিকাল চারটার দিকে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয় দু’টি দল। এ সময় উভয় দলের মাঝে ইট পাটকেলরও নিক্ষেপ হয়।

এ বিষয়ে হাটহাজারী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বেলাল উদ্দিন জাহাঙ্গগীর বলেন, সংঘর্ষের ঘটনা ঘটলেও এখন পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। যেকোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা রোধে ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন আছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আলী আজগর চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ও ইট পাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে ৷ বিশ্ববিদ্যালয় অস্থিতিশীলকারীদের কোন ছাড় নেই। তাদের বিরুদ্ধে আইন ও বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

#চবি প্রতিনিধি।

আরো পড়ুনঃ ইবিতে ভর্তি অাবেদনের সময় বাড়লো আরো দুইদিন

পাঠকের মতামত