স্বাস্থ্য ও ত্বকের পরিবর্তনে ডাবের পানির কার্যকারীতা

প্রকৃতি থেকে প্রাপ্ত উৎকৃষ্ট মানের স্যালাইন হচ্ছে ডাবের পানি। পৃথিবীর প্রায় সব জায়গাতেই ডাব পাওয়া যায়। মৃত্তিকা ভেদে ডাবের পানির স্বাদ বিভিন্ন রকম হয়ে থাকে। ব্রাজিলের ডাবের পানি একটু পানসে হয়। কিন্তু বাংলাদেশের ডাবের পানি খুব মিষ্টি সাথে একটু নোনতা ভাব।

ডাবের পানি, কচি ডাবের শাঁস নিরক্ষিয় অঞ্চলে খুবই জনপ্রিয়। অনেক দেশে স্যালাইনের পরিবর্তে ডাবের পানি শিরার মধ্য দিয়ে স্যালাইনের মত পানিশুন্যতা দূর করতে ব্যবহার করা হয়।

ডাবের পানি বিভিন্ন অসুস্থ্যতার বিরুদ্ধে খুব কার্যকরী। ডাইরিয়া রোগীকে ডাবের পানি পান করালে দ্রুত সুস্থ্য হয়ে উঠে। কারণ ডাইরিয়া হলে শরীরে ইলেকট্রোলাইট কমে যায়। আর তখনই ডাবের পানি শরীরে ইলেকট্রন ব্যালেন্স করে।

Untitled

যদি ত্বকের উপকারীতার কথা বলি তাহলে ডাবের পানির কোন জুড়ি নেই। সূর্যের অতিবেগুন রশ্মি ত্বকে মেলানিন উৎপাদন বাড়িয়ে দেয়। যার ফলে ত্বকে কালচে ভাব দেখা দেয় যা সানট্যান নামে পরিচিত। আর ডাবের পানি ত্বকের কালচে ভাব দূর করার জন্য সবথেকে কার্যকরী পন্থা। এছাড়া ত্বকের পিগমেন্টেশন বা বাদামী দাগ এবং ব্লেমিস বা লালচে দাগ দূর করতে ডাবের পানি খুব কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।

>> আরো পড়ুন:  উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, হার্টের সমস্যা ও ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাবে পেয়ারা

ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে চান? তাহলে প্রতিদিন ডাবের পানি দিয়ে মুখ ধৌত করুন। পেঁপের মত ডাবের মধ্যে প্রাকৃতিক এন্টিঅক্সিডেন্ট থাকার ফলে ডাবের পানি দিয়ে মুখ ধৌত করলে ত্বকের মধ্যে থাকা ক্ষতিকর “মুক্ত মৌল” সরিয়ে দিয়ে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায়।

ডাবের এন্টিফাঙ্গাল ও এন্টিব্যাকটেরিয়াল কিছু উপাদান আছে। অনেকের স্কীনে ফাঙ্গাল আক্রমণ বা ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ করে। আর এদের জন্যই ঔষধ হিসেবে ডাবের পানি ছাড়া আর ভালো কিছু নেই।

ডাবের পানিতে ০.৬৯ শতাংশ ক্যালসিয়াম থাকে। পরিমাণে অনেকটা কম থাকলেও এটি বিশুদ্ধ ক্যালসিয়াম যা শরীরে হাঁড় গঠনে সাহায্য করে।

হার্ট অ্যাটাক হওয়ার প্রধান একটি কারণ হল হাইপারটেনশন। ডাবের পানির হাইপারটেনশন কমানোর ক্ষমতা সবথেকে বেশী। বিশেষজ্ঞদের দ্বারা এটি প্রমাণিত যে- বেশী বেশী ডাবের পানির পান করলে হার্ট অ্যাটাক হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।

কচি ডাব

ডাবে পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম অক্সাইড এর পরিমাণ যথাক্রমে ০.২৫ এবং ০.৫৯ শতাংশ। এছাড়াও ডাবের পানিতে অল্প পরিমানে ভিটামিন সি থাকে যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে। ডাবের পানি কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতেও সহায়ক।

এছাড়াও ডাবের পানিতে কিনেটিন থাকে যা স্নায়ুসংক্রান্ত রোগে উপকারী। কিছু কিছু ক্ষেত্রে ডাবের পানি রোগের প্রতিরোধক ও প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করে।

ডাবের পানি কিডনির পাথর সৃষ্টি রোধ করে এবং ডায়রিয়া, আলসার, গ্যাসটাটাইটিস বা অ্যাসিডিটি, মূত্রনালীর সংক্রমণ ও ইউরোলিথিয়েসিস প্রতিরোধ করে। ডাবের পানিতে এন্টিসেপটিক গুণ থাকাতে কাটা-ছেঁড়া জায়গায় ব্যবহার করলে ভালো ফল পাওয়া যায়।

প্রিয় পাঠক আপনিও চাইলে খেলাধুলা, ফিচার, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, ইত্যাদি বিষয়ে বিডি৩৬০নিউজ এ লিখতে পারেন। লেখা পাঠান এই ইমেইল ঠিকানায় bd360news@gmail.com

অথবা চাইলে যুক্ত হতে পারেন বিডি৩৬০নিউজ এর এখন সম্মানিত প্রতিনিধি হিসাবে। এই সম্পর্কে বিস্তারিত পড়ুন এই লিঙ্কে  সারাদেশের সব জেলা, উপজেলা ও ক্যাম্পাস পর্যায়ে প্রতিনিধি নিচ্ছে বিডি৩৬০নিউজ

>>আরো পড়ুন:

 

Agami Soft. - Inventory Management System

পাঠকের মতামত