এশিয়া কাপে বাংলাদেশ দলের সেরাদের কথা : যা আমরা অনেকেই জানি না

আজ ১৪ সেপ্টেম্বর। আর মাত্র একদিন পরেই (১৫ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ দিয়ে পর্দা উঠতে যাচ্ছে এশিয়া কাপের ১৪তম আসরের। এই আসরে অংশ নিচ্ছে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ভারত, শ্রীলঙ্কা, আফগানিস্তান ও হংকং।
এদিকে বিগত আসরগুলোয় একাধিকবার ফাইন্যাল খেলা বাংলাদেশ স্বপ্ন দেখছে শিরোপা জয় করার। অনেক ক্রিকেট বিশেষজ্ঞও এমন ধারণা করছেন; এবারের এশিয়া কাপ জেতার জন্য তারা বাংলাদেশকেই বেশি সম্ভাবনাময় হিসেবে দেখছেন।
তবে সময় এখন বিগত এশিয়া কাপে বাংলাদেশ দলের খেলোয়ারদের পারফরমেন্স নিয়ে একটু ভাববার। বিগত আসরগুলোর পারফরমেন্স অনুযায়ী  যাঁরা এগিয়ে আছেন, তাঁদের মধ্যে রয়েছেন, জুনায়েদ সিদ্দিকি, এনামুল হক বিজয়, মোহাম্মদ আশরাফুল, অলক কাপালি এবং মুশফিকুর রহিম।
একটু আলোচনা করা যাক এঁদের নিয়ে।
প্রথমে বলছি,  জুনায়েদ সিদ্দিকি’র কথা। যিনি,  এশিয়া কাপের ইতিহাসে তৃতীয় বাংলাদেশি হিসেবে ৯০ এর বেশি রান করেন।  ৩৮৫ রানের টার্গেটে বাংলাদেশ শেষ পর্যন্ত ১৩৯ রানে হেরে গেলেও, ২০১০ সালের এশিয়া কাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে তাঁর একার ব্যাট থেকেই এসেছিল ৯৭ রান। যা এশিয়া কাপে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের জন্য একটি স্মরণীয় বিষয়।

এরপরে রয়েছেন, এনামুল হক বিজয়। যিনি অভিষেকের দ্বিতীয় ম্যাচেই সেঞ্চুরি করে নজর কাড়েন ক্রিকেট বিশ্বের। ২০১৪ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে এই সেঞ্চুরি করেন তিনি।

এবার যার কথা বলব, তার কথা সবারই কম বেশি জানা আছে। তাঁর সম্পর্কে নতুন করে আর কিছু বলার নেই। হ্যাঁ, ঠিক ধরেছেন, মোহাম্মদ আশরাফুলের কথাই বলছি। যাকে বাংলাদেশ ক্রিকেট কখনই এড়িয়ে যেতে পারবে না। তাঁর একাধিক সব অসাধারণ কীর্তির মধ্যে আছে এশিয়া কাপের সেঞ্চুরি।

২০০৯ সালে পাকিস্তানের লাহোরে অনুষ্ঠিত এশিয়া কাপে আরব আমিরাতের বিপক্ষে ৯৬ রানে ম্যাচ জেতে বাংলাদেশ, এই ম্যাচে ১০৯ রানই মোহাম্মদ আশরাফুলের।

এ পর্বের আলোচনায় আছেন, অলক কাপালি। যিনি, এশিয়া কাপে ভারতের বিপক্ষে  ১১৫ রান করেন। এখনো তার ১১৫ রান করা সেই ইনিংসটাকেই এশিয়া কাপে বাংলাদেশের সেরা ইনিংসগুলোর একটি বলে ধরা হয়।

সর্বশেষ যাঁর কথা বলব, তিনি একাধারে উইকেটরক্ষক এবং ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। বাংলাদেশ দলের সাবেক এই অধিনায়ক ২০১৪ সালের এশিয়া কাপের আসরে ১১৭ রান করেন। যা এখন পর্যন্ত এশিয়া কাপের কোনো বাংলাদেশি ক্রিকেটারের সর্বোচ্চ।  যদিও সেই ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে ২৭৯ রানের টার্গেট দিয়েও হেরে যায় বাংলাদেশ।

পাঠকের মতামত