হারিকেন ফ্লোরেন্সের ৯ ফুট পানির নিচে কারাবন্দিরা

আটলান্টিক মহাসাগরে সৃষ্ট হারিকেন ফ্লোরেন্স যুক্তরাষ্ট্রের পূর্ব উপকুলে আঘাত হানতে শুরু করার পরই সেখানকার দুটি অঙ্গরাজ্য থেকে ১৭ লাখ মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। কিন্তু সরিয়ে নেয়া হয়নি কারা বন্দিদের। এ নিয়ে সামাজিক মাধ্যমে চলছে নানা সমালোচনা।

অনেকেই টুইট করে বলছেন তারা থাকবেন,  হারিকেন ফ্লোরেন্সের ৯ ফুট পানির নিচে

ঘন্টায় ১৫০ কিলোমিটার গতিবেগের এই ঝড়ে অনেক মানুষের মৃত্যুর আশংকা করা হচ্ছে। বলা হচ্ছে ৯ ফুট উচ্চতার পানির নিচে উপকূলের কিছু অংশ এর মধ্যেই তলিয়ে গেছে।

এই এলাকাগুলো থেকে লোকজনের নিরাপদ জায়গায় সরে যাওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে, কিন্তু দক্ষিণ ক্যারোলাইনায় কমপক্ষে দু’টি কারাগারের বন্দীদের নিরাপদ আশ্রয়ে নেয়া হয়নি।

সেখানকার কর্মকর্তারা ইতিমধ্যেই ঘোষণা দিয়েছেন যে, কারাবন্দীদের অন্য কোনো জায়গায় নেয়া হবে না। দক্ষিণ ক্যারোলাইনার কারেকশন বিভাগের কর্মকর্তারা বলেছেন, অতীতের অভিজ্ঞতা থেকে তারা মনে করছেন, অন্য কোথাও নেয়ার চেয়ে বন্দীরা কারাগারেই নিরাপদ থাকবে।

দক্ষিণ ক্যারোলাইনার কারগার থেকে বন্দীদের নিরাপদ আশ্রয়ে না নেয়ার বিষয়টি সামাজিক মাধ্যমে আলোচনায় এসেছে।

২০০৫ সালে ভযাবহ ক্যাটরিনা যখন আঘাত হেনেছিল, তখন কারাগারগুলোতে হাজার হাজার কয়েদী চরম বিপদে পড়েছিল। কমপক্ষে ১ হাজার বন্দীর মৃত্যু হয়েছিল।

এই তথ্য একজন পিএইচডি’র শিক্ষার্থী টুইট করলে তা নিয়ে ব্যাপক আলোচনার সৃষ্টি হয়। ফেসবুকেও তা নিয়ে চলছে ব্যাপক আলোচনা।

 

পাঠকের মতামত