সব বাধা পার হতে প্রস্তুত ইংল্যান্ড

১৯৬৬ সালে একবার বিশ্বকাপ জিতলেও এরপর থেকে লিখে গেছে হতাশার গল্প। বড় টুর্নামেন্টের শেষ চার বলতে ৯৬ সালের ইউরো। তাতেও ছিল ব্যর্থতা। শুটআউটে জার্মানির কাছে হেরে বিদায় নিতে হয়েছিল।

এবার দ্বিতীয় সেমিফাইনালে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে জিতে নিজেদের প্রমাণ করতে চাই ইংল্যান্ড। সেই আশায় আছেন ইংলিশ কোচ, ‘আমরা সব বাধা পার হতে প্রস্তুত। পুরো সফরটা উপভোগ্য ছিল। আর আমরা সামনে এগিয়ে যেতে চাই।’

সেই ৯৬ সালের পর বড় কোনও টুর্নামেন্টের সেমিফাইনালে ইংল্যান্ড। সুর্বণ এই সুযোগ পেয়ে তার পুরোটা কাজে লাগাতে চান ইংল্যান্ড কোচ গ্যারেথ সাউথগেট। তার মতে, ‘আমাদের প্রস্তুতি একই ধারায় ছিল। আর এমন ধারাবাহিকতাই এই ম্যাচে প্রয়োজন।’

এতদিন ধরে ইংল্যান্ডের কাছে নকআউট মানে ছিল ব্যর্থতা। ২০০৬ সালের পর নকআউট পর্বে জয় পায়নি কখনো। অবশেষে এবার হয়েছে অসাধ্য সাধন। কোচ সাউথগেটও জানালেন, ‘আসলে আমরা এখানে ফুটবল উপভোগ করতে এসেছি। টুর্নামেন্টে আমরা সবচেয়ে তরুণ একটি দল, কম অভিজ্ঞ। তবে নিজেরা নিশ্চিত ছিলাম না দলটা কতটুকু এগিয়ে যাবে।’

এমন সাফল্যের পেছনে তীব্র ক্ষুধা কাজে দিয়েছে বলে মনে করেন ইংলিশ কোচ, ‘ছেলেদের মাঝে তীব্র ক্ষুধা এখন স্পষ্ট হয়ে ফুটে উঠছে। কারণ, আমরা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছি। আর সেটাই প্রমাণ করে তাদের চাহিদা কতখানি।’

দ্বিতীয় সেমিফাইনালে আজ বুধবার দিবাগত রাত ১২টায় মুখোমুখি হবে ক্রোয়েশিয়া ও ইংল্যান্ড।

পাঠকের মতামত