রাবির হলে খাবারের মান বৃদ্ধির দাবিতে ভাঙচুর!

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) হলের ডাইনিংয়ে খাবারের মান বৃদ্ধি ও হল সংস্কারের দাবিসহ ১২ দফা দাবিতে বিক্ষোভ করেছে একটি আবাসিক হলের শিক্ষার্থীর।

রোববার দুপুর ১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব আব্দুল লতিফ হলের ফটক অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা এ বিক্ষোভ করেন। এসময় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা হলের ডাইনিং ও ক্যান্টিনে ব্যাপক ভাঙচুর করেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শনিবার দুপুরে এক শিক্ষার্থী ডাইনিংয়ে খেতে বসে খাবারে পোকা পান। এতে আবাসিক শিক্ষার্থীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। পরে রোববার একসঙ্গে জড়ো হলে ডাইনিং ও ক্যান্টিনের বেসিন, চেয়ার, টেবিলসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র ভাঙচুর করেন। শিক্ষার্থীরা খাবারের মানবৃদ্ধি ও হল সংস্কারসহ ১২ দফা দাবিতে হলের ফটক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর গিয়ে দাবি পূরণের আশ্বাস দিলে শিক্ষার্থীরা অবরোধ তুলে নেয়।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে হলের আবাসিক শিক্ষার্থীরা নি¤্নমান ও অপরিচ্ছন্ন খাবার, টিউবলের অভাব, হলের আবর্জনা নিয়মিত পরিষ্কার না করা সহ নানা সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন। এ নিয়ে বারবার অভিযোগ দেয়া সত্ত্বেও হল প্রাধ্যক্ষ তাতে কান দিচ্ছেন না। প্রভোস্ট নিয়মিত হলেই আসেন না। শনিবার খাবারে পোকা পেলে শিক্ষার্থীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। তাই তারা বিক্ষোভের একপর্যায়ে ভাঙচুর চালায়।

শিক্ষার্থীরা হলের খাবার মানসম্মত করা, গোসলখানা ও শৌচাগারের আধুনিকায়ন, হলে রঙ করা, মসজিদ সংস্কার, পর্যাপ্ত টিউবওয়েল স্থাপন, পত্রিকা কক্ষের উন্নয়ন ও গ্রন্থাগার সংস্কার, পাঠকক্ষের ব্যবস্থা প্রভৃতি দাবি জানিয়েছেন। এসব দাবি সম্বলিত একটি স্মারকলিপি হল প্রাধ্যক্ষ ও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

আব্দুল লতিফ হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক বিপুল কুমার বিশ্বাস বলেন, শিক্ষার্থীরা দাবি জানিয়েছে। তাদের যৌক্তিক দাবিগুলো যতদ্রুত সম্ভব সমাধানের চেষ্টা করা হবে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, হলে দীর্ঘদিন ধরে নানা সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। এতে তারা বিক্ষুব্ধ হয়ে ডাইনিং ও ক্যান্টিনে ভাঙচুর করে। আমি হল প্রাধ্যক্ষকে বলেছি পাঁচ দিনের মধ্যে যেন হল পরিষ্কার করা হয় এবং অন্য দাবিগুলো পূরণে কাজ শুরু করেন।

পাঠকের মতামত