ঘুষ না নিলে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে প্রাণনাশের হুমকি

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরের রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিশ্বজিৎ ঘোষকে ঘুষ দিতে চেয়েছেন এক ব্যক্তি। কিন্তু ঘুষ নিতে না চাওয়ায় তাকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে।

বিশ্বজিৎ ঘোষ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েরও শিক্ষক। আজ রবিবার তার কক্ষে একটি ব্রিফকেসে করে ঘুষ হিসেবে নয় লাখ টাকা এবং না নিলে হত্যার হুমকি দিয়ে চিঠি ছিল।

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, রবিবার বেলা ১১টার দিকে সকালে উপাচার্য বিশ্বজিৎ ঘোষ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তার কক্ষে কাজ করছিলেন। এসময় অজ্ঞাত এক ব্যক্তি ব্রিফকেস নিয়ে সেখানে আসেন এবং ব্রিফকেসটি রেখেই বেরিয়ে যান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তারা ওই ব্যক্তিকে ধরলেও তিনি পালিয়ে যান। পরে ব্রিফকেস খুলে দেখা যায়, সেখানে নয় লাখ টাকা ও প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে একটি চিঠি ছিল। ওই চিঠিতে ‘টাকা নিবি না হয় প্রাণ দিবি’ এমন কিছু লেখা ছিল।

এর সাথে একজন চাকরি প্রত্যাশীর বিষয় আছে। এর বাইরে আর কিছু বলতে পারব না। বাকিটা বুঝে নেন। যে ব্যক্তি ব্রিফকেসে করে টাকা নিয়ে এসেছিলেন তিনি তার নাম ইলিয়াস হোসেন বলে তিনি জানান।

এ বিষয়ে শাহবাগ থানায় অভিযোগ দিতে যাওয়ার পর পুলিশ গণমাধ্যমে কিছু না জানাতে বলেছে। পুলিশের একজন কর্মকর্তা জানান, তারা তদন্তের পর গণমাধ্যমে গেলে ভালো।

ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে বেশ কয়েকটি পদে চাকরির নিয়োগ চলছে। এই জন্যই কোন চাকরি প্রত্যাশী এই কাজ করতে পারে। তবে উপাচার্য বিশ্বজিৎ স্যার খুব  সৎ মানুষ। তিনি কখনও এসব অনৈতিক কাজের মাধ্যমে কোন নিয়োগ দেন না। তাই আজ স্যারকে এই হুমকি। ঘটনার পর তিনি খুব ভেঙে পড়েছেন।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন ধরেননি। এবং রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিশ্বজিৎ ঘোষের ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে কল করলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়।

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য হিসেবে গত বছরের ১১ জুন নিয়োগ পান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক বিশ্বজিৎ ঘোষ। দেশের ৩৫তম পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের অবকাঠামো স্থাপন করা হচ্ছে। যৌথভাবে এর অর্থায়ন করছে বাংলাদেশ ও ভারত সরকার।

এর আগে ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে জাতীয় সংসদে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় বিল পাস হয়। ওই বছরের ৮ মে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পাঠকের মতামত