নোবিপ্রবিতে দ্বিতীয় ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলন শুরু ২৯ মার্চ

কামরুল হাসান শাকিম, নোবিপ্রবি প্রতিনিধি: ‘উন্নয়নের সাম্যতার মাধ্যমে মানবিকতা সমুন্নতকরণ’ এই লক্ষ্যে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি)  ছায়া জাতিসংঘের অধীনে দ্বিতীয়বারের মতো একটি ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আগামী ২৯ মার্চ চার দিনব্যাপী এ সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হবে।

সারাদেশ থেকে আগত শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন দেশকে প্রতিনিধিত্ব করার মাধ্যমে এ সম্মেলনে অংশগ্রহণ করতে পারবে। ইতোমধ্যে এর রেজিস্ট্রেশন শুরু হয়েছে ।

এবারে অনুষ্ঠিতব্য ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলনে ৮ টি কমিটি প্রকাশ করা হয়েছে। কমিটিগুলো হল: ইকোসক, ইউএনএইচসিআর, এফএও, এসসিবিএ, ইউএনসিএসটিডি, ইউএনএসসি, ডিআইএসইসি, ইউএনএনসি।

নোবিপ্রবি ছায়া জাতিসংঘের উপদেষ্টামণ্ডলীর অন্যতম সদস্য এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিশারিজ এন্ড মেরিন সায়েন্স বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান ফরহাদ বলেন, ‘তরুণ প্রজন্মই আগামীর পৃথিবীকে নেতৃত্ব দেবে। নেতৃত্বদান ও সুস্থবিতর্কের চর্চা ও কূটনৈতিক আলোচনার অনুশীলনই তৈরি করতে পারে আগামীর পাঞ্জেরি। ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলনে অংশগ্রহণই এ দক্ষতাগুলোকে সহজে ও সমন্বিতভাবে শানিত করতে পারে। এজন্য নোবিপ্রবি ছায়া জাতিসংঘের একজন উপদেষ্টা হিসেবে আমি সকল শিক্ষার্থীদেরকে নোবিপ্রবি ছায়াজাতিসংঘ সম্মেলন ২০১৮ তে অংশগ্রহণের আহবান জানাচ্ছি।’

নোবিপ্রবি ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলন ’১৮ এর মহাসচিব আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বলেন, ‘উপকূলীয় অঞ্চলে দ্বিতীয়বারের মতো ছায়া প্রতিনিধিদের অংশগ্রহণে বিশ্বমানের অধিবেশন আয়োজনের লক্ষ্যেই নোবিপ্রবি ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলন ২০১৮ কে বিন্যস্ত করা হয়েছে। আন্তরিক অভ্যার্থনার মাধ্যমে বিশ্ব মননশীলদের আমাদের এ অঙ্গনে স্বাগত জানাতে ও সর্বোচ্চ সেবাদানে আমরা বদ্ধপরিকর। একটি সুন্দর ভবিষ্যৎ তৈরির লক্ষ্যে নবীনদেরই এগিয়ে আসতে হবে। তিনি বলেন, এজন্য নোবিপ্রবি ছায়াজাতিসংঘ সম্মেলনে সকলের সমর্থন ও স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ একান্তভাবে কাম্য।’

এর আগে ২০১৬ সালে প্রথম আন্তঃনোবিপ্রবি ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। যার প্রতিপাদ্য ছিল, ‘শান্তি সমাচার সৃজনে নাগরিক ক্ষমতায়ন’। তারই ফলশ্রুতিতে এবার নোবিপ্রবি ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলন ’১৮ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ।

পাঠকের মতামত